ধানের শীষে হেরে নৌকায় জিতলেন তিনি

|

কামাল হোসাইন, নেত্রকোণা:

গত ইউপি নির্বাচনে তিনি ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে হেরেছিলেন। কিন্তু মাত্র দু’বছর পর এবার নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে জিতেছেন আবুল কালাম আজাদ। নেত্রকোণার মোহনগঞ্জে তেতুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। তিনি চার হাজার ৮৭৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে জয় লাভ করেছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সামিনা সুলতানা পেয়েছেন চার হাজার ২৬৬ ভোট। এই ইউনিয়নে মোট ভোটার ছিল ১৩ হাজার ৭৯৪ জন।

বিষয়টি নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা একেএম সাইদুজ্জামান আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিশ্চিত করেছেন।

নির্বাচনে দুইজনই প্রার্থী ছিলেন। বিএনপি থেকে উপনির্বাচনে কোন প্রার্থী দেয়া হয়নি। তবে বিএনপির উপজেলা কমিটির সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদকেই আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দেয়া হয়। তার সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে সামিনা সুলতানা লড়ছিলেন। সামিনা এই ইউনিয়নের সদ্য প্রয়াত চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মুরাদের স্ত্রী।

গত ১৩ জানুয়ারি মোহনগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ও তেতুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মুরাদের আকস্মিক মৃত্যুতে এ উপ-নির্বাচন হয়। আওয়ামী লীগ থেকে প্রয়াত মুরাদের স্ত্রীসহ সাতজন প্রার্থী হলেও কাউকে মনোনয়ন না দিয়ে মোহনগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদকে দেয়া হয়।

কালাম ২০১৬ সালের ২৩ এপ্রিলে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হয়ে মুরাদের কাছে হেরে যান। এদিকে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন লাভের পরদিন উপজেলা বিএনপি দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন ডেকে কালামকে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ এনে দল থেকে বহিস্কার করা হয়।









Leave a reply