ফিলিস্তিনিদের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকে ‘উস্কানিমূলক’ বললেন মার্কিন ‘শান্তিদূত’

|

ফিলিস্তিনিদের ভূমি দখলকারী ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ‘ভূমি দিবস’ পালন করতে বিক্ষোভ আহ্বান করাকে ‘শত্রুতামূলক’ বলে অভিহিত করলেন দেশ দু’টির মধ্যে শান্তি আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার জন্য নিয়োজিত মার্কিন দূত জ্যাসন গ্রিনব্লাট।

শুক্রবার বিক্ষোভের আগে জ্যাসন বলেন, ‘হামাস গাজা-ইসরায়ের সীমান্তে উত্তেজনা ছড়াতে শত্রুতামূলক বিক্ষোভের আয়োজন করেছে। এক টুইটে তিনি আরও বলেন, ‘সহিংসতার উস্কানি না দিয়ে বরং সমস্যাগ্রস্ত ফিলিস্তিনিদের উন্নয়নের জন্য কাজ করা উচিত হামাসের।’

তবে তার আগে হোয়াইট হাউজের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ইসরায়েলের নিজেদের রক্ষা করার অধিকার যেমন রয়েছে ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভ প্রদর্শনের অধিকারও রয়েছে।

মার্কিন শান্তিদূতের এমন বক্তব্যের পরপরই ফিলিস্তিনিদের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে ইসরায়েলি সেনারা গুলি চালায়। এতে সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৭ জন যুবক ও কিশোর নিহতের তথ্য জানা গেছে।

ইসরায়েল ও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, সেনারা বিক্ষোভকারীদের ওপর সরাসরি গুলি ও রাবার বুলেট ছুঁড়ে। এতে আহত হয়েছেন আরও ৫ শতাধিক। ইসরায়েলি সেনাবাহিনী জানিয়েছে, ১৭ হাজার ফিলিস্তিনি অংশ নেন।

গাজা উপত্যকায় আজ ‘প্রত্যাবর্তন দিবস’ পালন উপলক্ষে হাজারো ফিলিস্তিনি নারী-পুরুষ ও শিশু রাস্তায় নামেন। তারা ইসরায়েলের নির্মিত সীমানা প্রাচীর ঘেঁষে চলার সময় গুলি ছোঁড়া হয়।

ফিলিস্তিনিদের ভূমি দখলের প্রতিবাদে ১৯৭৬ সালের ৩০ মার্চ বিক্ষোভ করছিলেন সাধারণ ফিলিস্তিনিরা। সেই বিক্ষোভে হামলা চালিয়ে ৬ জনকে হত্যা করে ইসরায়েলি সৈন্যরা। দিনটিকে এর পর থেকে ‘ভূমি দিবস’ হিসেবে পালন করা হয়। ৪২ তম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আজও দখলদার ইসরায়েলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করতে গিয়ে প্রাণ দিলেন ছয় যুবক-কিশোর।

আহতদেরকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে

আহতদেরকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে

বিক্ষোভে হাজারো ফিলিস্তিনি

পোড়ানো হচ্ছে ট্রাম্পের ছবি

বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি ছুঁড়ছে ইসরায়েলি সেনারা (ছবি এএফপি)

বিক্ষোভে অংশ নেন নারীরাও









Leave a reply