৫ জেলার নামের নতুন বানান: মানা হয়নি উচ্চারণ ও ধ্বনিতত্ত্বের নিয়ম

|

বাংলা ও বাঙালি সংস্কৃতির সেই চেতনা ধারন করেই পাচঁ জেলার ইংরেজি নামের বানানে পরিবর্তন বলে জানিয়েছে সরকার। তবে এনিয়ে চলছে নানা বিতর্ক। পরিবর্তনকে পাচঁজেলার অধিবাসীসহ কেউ কেউ স্বাগত জানালেও অনেকেই সমালোচনামুখর।

উচ্চারণ ও ধ্বনিতত্ত্বের নিয়ম অনুযায়ী পাঁচ জেলার ইংরেজি নামের নতুন বানান সঠিক হয়নি বলে মনে করেন ভাষাতাত্ত্বিকরা। এক্ষেত্রে সরকার বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়েছে কিনা এ নিয়ে সন্দিহান তারা। সংশ্লিষ্ট জেলাগুলোর অধিবাসীদের মাঝেও এ নিয়ে আছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক বলছেন, প্রচলিত বানান রীতি মেনে নতুন করে সংশোধন করা যেতে পারে নামগুলো।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভাষা ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক রুপা গাঙ্গুলী বলেন, নতুন বানানে ধ্বনিতত্ত্বকে গুরুত্ব দেয়া হয়নি। chittagong বদলে করা হয়েছে chattagram. কিন্তু ‘চট্টগ্রাম’ উচ্চারণে ‘a’ নেই, আছে ‘o’ এর উচ্চারণ।

রুপা গাঙ্গুলী আরও বলেন, ‘যশোর’ এর পরিবর্তিত বানান ইংরেজিতে ‘যাশোরে’ (Jashore) হয়ে গেছে। তিনি যুক্তি তুলে ধরে বলেন, ‘কলকাতা’কে যদি ইংরেজিতে ‘k’ দিয়ে লেখা হয় তাহলে ‘কুমিল্লা’কে কেন ‘c’ দিয়ে লেখা হবে?

বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালকও মনে করেন রীতি মেনেই করা উচিত ছিলো বানান সংশোধন। ড. শামসুজ্জামান খান বলেন, এই পরিবর্তন যথেষ্ট হয়েছে তা বলা যায় না। সঠিক উচ্চারণের কাছাকাছি এসেছে মাত্র। আবার এ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে নাম বদলের কারণে বেশ কিছু টাকা খরচ হতে পারে।

সরকার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করলেও চাইলে প্রকৃত বানানরীতি মেনে আবার সংশোধন করা যেতে পারে বানান। এক্ষেত্রে শুধু ৫ জেলার ইংরেজি নামের বানানই নয়, সংশোধন করা যেতে পারে আরও কিছু জেলার নাম- তেমনটাই বললেন অধ্যাপক রুপা গাঙ্গুলী।









Leave a reply