মোদির সাথে ঘনিষ্ঠতার কারণেই জামিন পেলেন সালমান!

|

কৃষ্ণসার হরিণ হত্যার দায়ে বৃহস্পতিবার ৫ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল বলিউড সুপারস্টার সালমানক খানকে। কিন্তু কারাদণ্ডের ৪৮ ঘণ্টা পার না হতেই জামিনে মুক্তি পেলেন তিনি। শনিবার বিকালে অনেক নাটকীয়তার পর শেষ পর্যন্ত সালমান খানের জামিনের আবেদন মঞ্জুর করেছেন যোধপুর সেশন কোর্টের বিচারক রবীন্দ্র কুমার যোশি।

৫০ হাজার রুপির ব্যক্তিগত বন্ডে বিচারক এই বলিউড তারকাকে জামিন দেন। তবে সালমানের জামিনের নেপথ্যে প্রধানমন্ত্রী মোদির সাথে ঘনিষ্ঠতা ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করছেন অনেকে। বেশ কয়েকটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, ২০১৪ সালে মোদি যখন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন সেই সময় গুজরাট গিয়ে তার সাথে ঘুড়ি উড়িয়েছিলেন সালমান। গুজরাট দাঙ্গায় তখন অভিযুক্ত মোদি। তার সঙ্গে একই সুতোয় হাত রেখে ঘুড়ি উড়ানোর পরেই সমালোচিত হয়েছিলেন সালমান। সালমানের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সম্পর্ক বেশ পুরনো ও ভালো।

সালমানের এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর অভিযোগ, মোদি-ঘনিষ্ঠ হওয়ার কারণেই কংগ্রেসের পক্ষ থেকে সালমানকে বিপাকে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল। সালমানের বিরুদ্ধে অনিচ্ছাকৃত খুনের ধারা প্রয়োগ করেছিল মহারাষ্ট্রের তৎকালীন কংগ্রেস সরকারই।

২০১৫ সালে ৬ মে মুম্বাইয়ের দায়রা আদালত পাঁচ বছরের জন্য দোষী সাব্যস্ত করে সালমানকে। দু’দিন পরেই অবশ্য মুম্বাইয়ের হাইকোর্ট দায়রা আদালতের সেই রায় স্থগিত করে দেয়। সালমানের কাছের বন্ধুদের অনেকে বলছেন, আগের কংগ্রেস সরকার চেয়েছিল বজরঙ্গী ভাইজানকে জেলের শিকে পুরতে! আর এবার কিনা প্রধানমন্ত্রীর সাথে ঘনিষ্ঠতার কারণে দু’দিন জেল খেটেই জামিন পেলেন সাল্লু?

যমুনা অনলাইন: এটি









Leave a reply