বড় দু’দলের কথার লড়াই

|

খালেদা জিয়ার শারীরিক সমস্যা বেড়েছে অথচ যথাযথ চিকিৎসা দিচ্ছে না সরকার। এমন অভিযোগ বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদের। তবে অভিযোগ নাকচ করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম। বলেছেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে অহেতুক মিথ্যাচার করছে বিএনপি। কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়েও বৃহৎ রাজনৈতিক দল দুটির নেতারা একে অন্যের দিকে আঙ্গুল তুলেছেন।

দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। কিছুদিন আগে মেডিকেল বোর্ডের পরামর্শে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হয় তার। কিন্তু সরকারি ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা নিয়ে সন্তুষ্ট নয় বিএনপি।

সোমবার সকালে নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব। তার অভিযোগ, সরকার চায় বিএনপি চেয়ারপারসনের শারীরিক অবস্থার অবনতি হোক। বিদ্যমান ব্যবস্থায় সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছেন না খালেদা জিয়া।

রুহুল কবীর রিজভী অভিযোগ করেন, কারা কর্তৃপক্ষ সরকারের মুঠোবন্দী। খালেদা জিয়াকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করতে কারা কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিএনপির ব্রিফিংয়ের বিষয়ে সচিবালয়ে পাল্টা ব্রিফ করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। বলেন, দলটির অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। সরকার জেল কোড অনুযায়ী সর্ব্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করছে। সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং বড় একটি দলের চেয়ারপারসন এসব বিষয় মাথায় রেখেই খালেদা জিয়ার চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

সোমবার রাজধানীতে নিজ নিজ কর্মসূচিতে কোটা সংস্কার আন্দোলন ইস্যুতেও কথা বলেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতারা। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনের মাধ্যমে সরকার বিরোধী আন্দোলন সাজাতে চেয়েছিল বিএনপি।
তিনি আরও বলেন, বিএনপি যে সরকার বিরোধী আন্দোলন সাজিয়েছিল তা কর্পূরের মতো বাতাসে মিশে গেছে।

অন্যদিকে, রিজভী বলেন, পরাজিত হয়ে প্রলাপ বকছেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

এদিকে, নির্বাচনের দিনক্ষণ যতই ঘনিয়ে আসছে জাতীয় পার্টির রাজনৈতিক গুরুত্ব বাড়ছে। পরিস্থিতি বুঝে জাতীয় পার্টির সাথে আসন বণ্টন নিয়ে আলোচনা হবে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের। অবশ্য, এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু বলতে চাননি বিএনপি নেতারা।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply