বাঁচানো গেলো না রাজিবকে

|

চিকিৎসকদের সব চেষ্টা ব্যর্থ করে না ফেরার দেশে চলে গেলেন দুই বাসের চাপায় হাত হারানো তিতুমীর কলেজ শিক্ষার্থী রাজীব হোসেন।
সোমবার রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ’তে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। রাত ১২টা ৪০ মিনিটে রাজীবের মৃত্যুর খবর পরিবারকে নিশ্চিত করেন চিকিৎসকরা।

বাবা মা হারা রাজীব হোসেন ছোট দুই ভাইয়ের একমাত্র অভিভাবক ছিলেন। নিজের লেখাপড়ার পাশাপাশি দু’ভাইয়ের পড়াশোনার খরচ যোগাতেই রাজধানীতে এসেছিলেন তিনি। থাকতেন যাত্রাবাড়ীর মীরহাজিরবাগের একটি মেসে। রাজিবের অকাল মৃত্যু মানতে পারছে না পরিবার। এই ঘটনায় দোষিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তারা।

দুর্ঘটনার পর রাজীবের চিকিৎসার জন্য মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করেছিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কতৃপক্ষ। এই বোর্ডের অধিনে চিকিৎসাধীন ছিলেন রাজিব। মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হওয়ায় তাকে নেয়া হয়েছিল নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে। সব চেষ্টা ব্যর্থ করে সোমবার রাতে মৃত্যু হয় তার।

৩ এপ্রিল দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সার্ক ফোয়ারার সামনে দুই বাসের চাপায় তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হোসেনের হাত শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।









Leave a reply