ফ্রান্সে কঠিন হচ্ছে রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়া

|

ফ্রান্সের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে পাস হলো বিতর্কিত অভিবাসন আইন। এতে দেশটিতে রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়ার সুযোগ সীমিত হয়ে পড়বে। বিলের পক্ষে ভোট দেন ২২৮ জন, বিপক্ষে ছিলেন ১৩৯। ভোটদানে বিরত ছিলেন ২৪ জন।

অভিবাসনের ক্ষেত্রে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা কমাতে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে আইনে। রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন সুরাহা এখন ১ বছরের পরিবর্তে ৬ মাসের মধ্যেই সম্পন্ন হবে। আর আশ্রয়প্রার্থীকেও ৬ মাসের পরিবর্তে ৩ মাসের মধ্যে আবেদন জমা দিতে হবে। আর আপিলের জন্য সময় দেয়া হবে মাত্র দুই সপ্তাহ।

অবৈধ অভিবাসী ধরা পড়লে তাকে দেশে ফেরত পাঠানোর আগে তাকে সর্বোচ্চ ৪৫ দিন ডিটেনশনে রাখার নিয়ম ছিলো। এবার তা বাড়িয়ে ৯০ দিন করা হয়েছে। অবশ্য কট্টর ডানপন্থিরা এটিকে বাড়িয়ে ৬ মাস করার পক্ষে ছিলো। পাশাপাশি অনুপ্রবেশ করে ধরা পড়লে সাজার মেয়াদ রাখা হয়েছে ১ বছর।

নতুন এই অভিবাসন বিলের তীব্র সমালোচনা করেছে মানবাধিকার সংস্থাগুলো। তাদের দাবি, ফ্রান্সের অভিবাসন বান্ধব ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হবে এ আইনের ফলে। অভিবাসন বান্ধব এনজিওগুলো বলছে, এসব পরিবর্তনে বিপাকে পড়বে অভিবাসন প্রত্যাশীরা। নতুন আইন অনুসারে আবেদনের পক্ষে পর্যাপ্ত নথিপত্র প্রস্তুত করার সময় পাবেন না অনেকেই। জুনে পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষে পাশ হলেই কার্যকর হবে বিলটি।

 

 









Leave a reply