ড্রাইভার মুসলিম, তাই রাইড বাতিল করলেন ভিএইচপি নেতা!

|

রাইড শেয়ারিং অ্যাপ সার্ভিস ‘ওলা’তে গাড়ি ডেকেছিলেন বিশ্ব হিন্দু পরিষদ (ভিএইচপি) নেতা। গাড়ি নিয়ে ড্রাইভার হাজির হওয়ার পর যখন ওই নেতা জানতে পারলেন ড্রাইভার একজন মুসলিম, সাথে সাথেই বাতিল করে দিলে তার রাইড! তিনি কোনো মুসলিমের গাড়িতে চড়বে না।

পরে গর্ব করে টুইটারে প্রচারও করেছিলেন উগ্র হিন্দুত্ববাদী নেতা অভিষেক মিশ্র। এটা জেনে মিশ্রকে তাদের পরিষেবায় সেন্সর করেছে ওলা কর্তৃপক্ষ।

ওলা আজ সোমবার জানিয়েছে, তারা চালক বা গ্রাহকদের ধর্ম, জাত বা লিঙ্গের মাপকাঠিতে কোনও ভেদাভেদ করে না। বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানটি বলেছে, ‘আমরা সব গ্রাহক ও ড্রাইভার পার্টনারকে সব সময় পরস্পরকে সম্মান করে চলার আবেদন করছি।’

নিজেকে ‘হিন্দুত্ববাদী চিন্তক’ বলা অভিষেক ভারতের বর্তমান ক্ষমতাসীন দল বিজেপির মিত্র সংগঠন বিশ্ব হিন্দু পরিষদের মিডিয়া উপদেষ্টা। বিজেপির কয়েকজন মন্ত্রীও পর্যন্ত তাকে টুইটারে ফলো করেন।

২০ এপ্রিলের টুইট করে তিনি জানান, চালক মুসলিম বলে ওলার বুকিং বাতিল করেছেন তিনি। সাথে এও লেখেন, তিনি জেহাদিদের পয়সা দিতে চাননা! এরপর মিশ্রর এই টুইট নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে প্রতিক্রিয়া আসতে থাকে। অনেকে টুইটার এবং ওলায় অভিষেকের অ্যাকাউন্ট বাতিলের দাবি করেন। আবার কেউ কেউ তাকে সমর্থনও করেছেন।

অভিষেকের মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করে কংগ্রেস সাংসদ শশী তারুর টুইট করেন, ‘আমার সেই ভারতকে মনে পড়ছে যেখানে এ ধরনের চিন্তাভাবনা পোষণ করা লোকজনকেই বাহবা দেওয়া, ফলো করার পরিবর্তে একঘরে করা হত। আমাদের সেই ভারতীয়ত্ব ফিরিয়ে আনতে হবে।’

টুইটার কর্তৃপক্ষ অবশ্য অভিষেককে তাদের প্ল্যাটফর্ম থেকে নিষিদ্ধ করার দাবি মানেনি। বলেছে, তারা টুইটের বিষয়বস্তু তদন্ত করে দেখে নিয়মরীতি ভাঙার কোনও প্রমাণ পায়নি।

তবে বিতর্ক, সমালোচনাও গায়ে মাখছেন না অভিষেক। আরেক টুইটে লিখেছেন, আমি শুধু হিন্দু ড্রাইভারদের হয়ে কথা বলছি। ওদের সঙ্গেও গ্রাহকরা ধর্মীয় কারণে বৈষম্যমূলক আচরণ করেন।









Leave a reply