যেতে চেয়েছিলেন তীর্থে, মিললো হজযাত্রার ছুটি!

|

কদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হাসির খোরাক যোগাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি প্রজ্ঞাপন। যেখানে দেখা যাচ্ছে, সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষক অরুন চন্দ্রকে বিশ্বাসকে হজে যেতে ৫০ দিন ছুটি দেয়া হয়েছে! এ ঘটনায় জনমনে নানা প্রশ্নের উদ্রেক হয়েছে। তবে কি অরুণ চন্দ্র ধর্মান্তরিতত হয়েছেন, নাকি খামখেয়ালিপনার আরেকটি নমুনা এটি? কেউ কেউ এর সত্যতা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন।

আদেশের সত্যতা জানতে যোগাযোগ করা হয় গোপালগঞ্জের সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক অরুন চন্দ্র বিশ্বাসের সঙ্গে। তিনি এমন একটি সরকারি আদেশ দেখার কথা জানিয়ে বলেন, আমি ১ জুন থেকে ২১ জুন পর্যন্ত তীর্থযাত্রার জন্য ছুটির আবেদন করেছিলাম। সরকারি আদেশে আমাকে হজে যাওয়ার জন্য ৫০ দিনের ছুটি দেওয়া হয়েছে! এটি সম্ভবত মন্ত্রণালয় ভুল করে দিয়েছে।

কীভাবে এমন ঘটনা ঘটলো সে হিসাব মিলাতে পারছেন না হিসাব বিজ্ঞানের এই শিক্ষক। শেষ পর্যন্ত তীর্থযাত্রার ছুটি মেলে কিনা সেটি নিয়েও পড়েছেন সংশয়ে।

গোপালগঞ্জের সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের অধ্যক্ষ মতিউর রহমান যমুনা অনলাইনকে জানান, আমি দেখে শুনেই স্বাক্ষর করে অরুণ চন্দ্র বিশ্বাসের তীর্থযাত্রার আবেদন পাঠিয়েছি। সম্ভবত মন্ত্রণালয় কোনো ভুল করেছে।

অফিস আদেশটিতে (নম্বর- ৩৭.০০.০০০০.০৬৯.০৮.০১০.৪৩৪) স্বাক্ষর ছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের উপসচিব মুরশিদা শারমিন। তিনি এ বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু জানাতে পারেননি।

শিক্ষামন্ত্রীর জনসংযোগ কর্মকর্তা মাবুদ আজমি জানান, ছুটিন কারণে কিছু বলা সম্ভব না। এরকম হবার কথা না। যদি হয়ে থাকে তাহলে ভুলে হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের ওয়েবসাইটে ৩৭.০০.০০০০.০৬৯.০৮.০১০.১৭.৪৩৫ নম্বর সরকারি আদেশের কপি খুঁজে পাওয়া গেলেও আলোচিত ৩৭.০০.০০০০.০৬৯.০৮.০১০.৪৩৪ নম্বর অফিস আদেশটি আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply