গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, শাশুড়ি আটক

|

<strong>কামাল হোসাইন, নেত্রকোণা</strong>

নেত্রকোণার পূর্বধলায় উপজেলার হোগলা ইউনিয়নের সাধুপাড়া গ্রামের হৃদয় মিয়ার স্ত্রী সুমাইয়া খানম সুমি (২১) নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশ নিহত গৃহবধূর শাশুড়ি রিপা আক্তারকে (৪৫) আটক করেছে।

স্থানীয়দের সংবাদে পুুলিশ বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার দিকে হৃদয় মিয়ার বসত ঘরের বারান্দা থেকে লাশ উদ্ধার করার সময় নিহতের শ্বশুর-শাশুড়িসহ বাড়ির লোকজন পালিয়ে যায়। এসময় পাশের বাড়ি থেকে শাশুড়ি রিপা আক্তারকে আটক করে।

নিহতের বাবা ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার কাজী সিমলা গ্রামের আবু সাঈদ জানান, গত দেড় বছর আগে তার মেয়েকে বিয়ে দেন তারই ভাগ্নে পূর্বধলা উপজেলার সাধুপাড়া গ্রামের আবুল কালামের ছেলে হৃদয় মিয়ার সাথে। বিয়ের কিছু দিন পর জামাতা হৃদয় মিয়া তার মেয়েকে বাড়িতে রেখে কর্ম সংস্থানের উদ্দেশে ঢাকায় চলে গেলে হৃদয়ের নেশাগ্রস্ত বাবা আবুল কালাম ও মা রিপা তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রায়ই তার মেয়েকে মারধর করত। নিহত সুমির একটি কন্যা সন্তান হয়। তার বয়স হয়ে ছিল মাত্র দেড় মাস। সুমির বাবা আরও বলেন, শত লাঞ্ছনার মাঝেও আমার মেয়েটি ওই কন্যা সন্তানটিকে নিয়ে বাঁচতে চেয়ে ছিল। কিন্ত তাকে বাঁচতে দিলনা।

স্থানীয়রা জানান, হৃদয়ের বাবা আবুল কালাম নেশাগ্রস্ত ও জুয়াড়ী ছিলেন, ইতিপূর্বে তার বিরুদ্ধে থানায় ধর্ষণ মামলাও ছিল। এটি হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা।

পূর্বধলা থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) বিল্লাল উদ্দিন জানান, খবর পেয়ে হৃদয়ের ঘরের বারান্দা থেকে বৃহস্পতিবার সুমাইয়া খানম সুমির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের মুখে হালকা দাগ রয়েছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা এ মুহূর্তে বলা সম্ভব যাচ্ছে না। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহত গৃহবধূর শাশুড়ি রিপা আক্তারকে আটক করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।









Leave a reply