মুক্তামণির শারীরিক অবস্থার অবনতি : ফের বসছে মেডিকেল বোর্ড

|

স্টাফ রিপোর্টার, সাতক্ষীরা

বিরল চর্মরোগে আক্রান্ত সাতক্ষীরার কামারবাইশা গ্রামের কিশোরী মুক্তামণির শারীরিক অবস্থা আবারও খারাপের দিকে। মুক্তামণির বাবা ইব্রাহীম যমুনা নিউজকে জানান, মুক্তার ডান হাতটা ফের ফুলে গেছে। কিছু জায়গায় ফুলে গিয়ে ফেটে গেছে। আবারো আগের মত জন্মাচ্ছে পোকা। অস্ত্রপচার করা স্থানে ফুটো হয়ে ঝরছে রক্ত। দুর্গন্ধে তার ঘরে যাওয়া যাচ্ছে না।

বিষয়টি জানার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন ফোনে মুক্তার খোঁজ খবর নিয়েছেন। তিনি তাকে জানিয়েছেন, আজ সংশ্লিষ্ট মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকদের নিয়ে আলোচনায় বসবেন।

মুক্তামণির বাবা ইব্রাহিম আরও বলেন, ডাক্তাররা তো সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন। বর্তমানে আর নতুন করে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার অবস্থা নেই তার। তারপরও ডাক্তাররা বললে আমি তাকে নিয়ে ঢাকায় যাব। জানিনা কি হবে। বিদেশি ডাক্তারা দায়িত্ব না নিলেও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশের সবচেয়ে বড় বড় ডাক্তাররা মুক্তার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন। এখন আল্লাহ আমাদের একমাত্র ভরশা।

২০১৭ সালের জুলাই মাসে ‘বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু মুক্তা মণি’ শিরোনামে যমুনা টেলিভিশনসহ দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর টনক নড়ে স্বাস্থ্য বিভাগের। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তার চিকিৎসার দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। তার ডান হাতের চিকিৎসায় সে সময় একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। দীর্ঘ ছয় মাস চিকিৎসার পর হাতের অবস্থা কিছুটা ভালো হলে তাকে এক মাসের জন্য গ্রামের বাড়িতে আসার অনুমতি দেয়া হয়। কিন্তু বাড়িতে আসার পর মুক্তামণি আর ঢাকায় ফেরেনি। তবে ডাক্তারদের পরামর্শে বাড়িতেই নিয়মিত তার চিকিৎসা চলছিল।









Leave a reply