বিয়ারের বোতল দিয়ে মন্দির তৈরি

|

মদের বোতল দিয়ে মন্দির তৈরি। তাও আবার একটা দুটি বোতল নয় ১৫ লাখের বেশি বোতল দিয়ে এই মন্দিরটি তৈরি করা হয়েছে। দুবছর ধরে এই মন্দিরটি তৈরি করা হয়েছিলো। বিয়ারের বোতল দিয়ে মন্দির তৈরি করা হলেও এখানে কিন্তু মদ পান করা অবৈধ। তবে একটি মন্দিরে কেউ বিয়ারের খালি বোতল হাতে নিয়ে এলে পুরোহিতরা শাপ-শাপান্ত তো করেনই না, উল্টো তাকে সাদরে বরণ করে নেন।
হ্যা এরকম মন্দিরটি হলো থাইল্যান্ডের সিসাকেট অঞ্চলের কুন হান জেলায়। এই বৌদ্ধ মন্দিরটি স্থানীয় ভাষায় ওয়াট পা মহা চেরি কেওউ মন্দির নামে পরিচিত।

জানা যায়, ১৯৮৪ সালে এক বৌদ্ধ সন্ন্যাসী বিরক্ত হয়ে গিয়েছিলেন বিয়ারের বোতলে। যে পর্যটকরা এখানে আসতেন তাঁরা বিয়ার খেয়ে বোতলগুলো ফেলে রেখে যেতেন। আর তখন থেকে ওই বৌদ্ধ সন্ন্যাসী সেই বিয়ারের বোতলগুলো সংগ্রহ করে রাখতেন। আর তাতেই তৈরি করেছেন বিয়ারের বোতল দিয়ে বৌদ্ধ মন্দির। বোতলের রং কখনও নষ্ট হয় না। তাই এই বিয়ারের বোতলগুলি কাজে লাগিয়ে এখন দারুণ লাগছে বৌদ্ধ মন্দিরটি। ‌‌

মন্দিরটি নির্মাণে দুই ধরনের বোতল ব্যবহার করা হয়। একটি হলো হেইনকেন বিয়ারের সবুজ বোতল এবং আরেকটি স্থানীয় চ্যাং বিয়ারের খয়েরি বোতল। প্রার্থনাঘর থেকে শুরু করে শৌচাগার-সব কিছুই নির্মিত হলো বোতল দিয়ে। এমনকি মন্দিরের নকশার কাজটাও তারা সেরে ফেললেন বোতলের ঢাকনা দিয়ে।

এমনকি গৌতম বুদ্ধ যে আসনটিতে অধিষ্ঠান করছেন, সেটিও তৈরি বিয়ারের বোতলের ঢাকনা দিয়ে৷

সূর্যের আলো পড়লে চকচক করে ওঠে বোতলগুলি৷ মন্দির দেখার টানেই এই অঞ্চলে ভিড় জমান হাজার হাজার পর্যটক৷









Leave a reply