খেলোয়াড়দের আয়ের ৩৩ শতাংশ সরকারি তহবিলে জমার নির্দেশ!

|

মাঠে গা ঘামিয়ে পরিশ্রমক করে রোজগার করবেন খেলোয়াড়রা৷ আর সেই রোজগারের এক তৃতীয়াংশ দিতে হবে সরকারি তহবিলে৷ বিতর্কিত এই নির্দেশিকা জারি করেছে বিজেপি শাসিত হরিয়ানা সরকার৷

সরকারের জারি করা এই নির্দেশিকায় সে রাজ্যে এখন বিতর্ক চরমে৷ সরকারের সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করছেন অ্যাথলেটরা, সিদ্ধান্ত মানতে পারছে না ক্ষমতাসীন বিজেপিরই একাংশ৷

সাক্ষী মালিক, যোগেশ্বর দত্ত, ববিতা ফোগট, গীতা ফোগটদের রাজ্য হরিয়ানা৷ হরিয়ানার খেলাধুলার চর্চা মানেই কুস্তি আর ক্রিকেট৷ কুস্তিতে যেমন বিশ্বমানের তারকা উঠে এসেছে এই রাজ্য থেকে তেমনি উঠে এসেছেন বীরেন্দ্র শেহবাগ, আশিস নেহেরার মত বিশ্বমানের ক্রিকেটাররাও৷

এহেন হরিয়ানায় এবার ক্রীড়াবিদদের জন্য খারাপ খবর৷ সরকারি চাকরি করেন এমন ক্রীড়াবিদরা খেলা বা বিজ্ঞাপন থেকে যে পরিমাণ টাকা রোজগার করেন তার ৩৩ শতাংশ জমা দিতে হবে সরকারের ক্রীড়া তহবিলে৷

গত ৩০ মে এমনই নির্দেশিকা জারি করেছে মনোহরলাল খট্টরের সরকার৷ এমনকী খেলাধূলা সংক্রান্ত কারণে চাকরি থেকে ছুটি নিলে সেই সময়ের বেতনও দেওয়া হবে না ক্রীড়াবিদদের৷ খেলা বা বিজ্ঞপনি শ্যুটিংয়ের জন্য কোনও খেলোয়াড় ছুটি নিলে সেই ছুটি বেতনহীন ছুটি হিসেবে গ্রাহ্য হবে৷ ছুটিতে থাকাকালীন যে টাকা তিনি রোজগার করবেন তার ৩৩ শতাংশ যাবে সরকারের খাতায়৷

যদি, কোনও খেলোয়াড় কর্তব্যরত অবস্থায় কোনও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বা বিজ্ঞাপনি শ্যুটিংয়ে অংশ নেন তাহলে সেই খেলা বা বিজ্ঞাপন থেকে তাঁর রোজগার করা পুরো টাকাটাই যাবে সরকারি ক্রীড়া তহবিলে৷

সরকারের দাবি, এইভাবে রোজগার করা টাকা নাকি ব্যবহার করা হবে খেলাধুলার উন্নতিকল্পে৷ তবে সরকারের এই সিদ্ধান্তে রীতিমতো ক্ষুব্ধ ক্রীড়াবিদরা৷ ইতিমধ্যেই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন অনেকে। সিদ্ধান্তে খুশি নয় রাজনৈতিক মহলও৷ বিরোধীরা সরকারের এই সিদ্ধান্তকে নিন্দনীয় হিসেবে বর্ণনা করছে৷









Leave a reply