‘বহিরাগত নিষিদ্ধ’ ইস্যু: আগের বক্তব্য থেকে সরে এলো ঢাবি প্রশাসন

|

‘বহিরাগতরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ/প্রক্টরের পূর্বানুমতি ছাড়া ক্যাম্পাসে অবস্থান ও ঘোরাফেরা এবং কোনো ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে না’ বলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যে ঘোষণা দিয়েছিল তা থেকে সরে এসে গণমাধ্যমে নতুন বিবৃতি পাঠানো হয়েছে। আজ বুধবার পাঠানো বিবৃতিতে দাবি করা হয়, গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আগের প্রেস রিলিজের বক্তব্য খণ্ডিতভাবে তথ্য প্রচার করা হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট কমিটির সিদ্ধান্তের বিষয়ে দেশের কিছু গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খণ্ডিতভাবে তথ্য প্রচারের ফলে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কাউকে প্রবেশ বা গমনাগমনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয় নাই। বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচারের মাধ্যমে অশুভ শক্তিকে উৎসাহিত না করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে অনুরোধ জানানো যাচ্ছে।’

এর আগে গত ৯ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেস রিলিজে বলা হয়, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস শুধুমাত্র এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত। এখানে বহিরাগতরা বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ/প্রক্টরের পূর্বানুমতি ছাড়া ক্যাম্পাসে অবস্থান ও ঘোরাফেরা এবং কোনো ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে না। প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নেবেন।’

এতে স্পষ্টভাবে উল্লেখ রয়েছে- ‘বহিরাগতরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ/প্রক্টরের পূর্বানুমতি ছাড়া ক্যাম্পাসে অবস্থান ও ঘোরাফেরা এবং কোনো ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে না’। সাথেও এও বলা হয়- ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস শুধুমাত্র এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত।’ পাশাপাশি প্রেস রিলিজে সতর্ক করা হয় এটা বলে যে, (বহিরাগতদের বিরুদ্ধে) ‘প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নেবেন।’

এই খবর প্রচারের পর নানাপক্ষ এ নিয়ে সমালোচনায় সরব হন। ‘বহিরাগত’ বলতে কাদেরকে বুঝানো হচ্ছে, এবং কর্তৃপক্ষ তাদের এই নিষেধাজ্ঞা কিভাবে বাস্তবায়ন করবে- এ নিয়েও প্রশ্ন ওঠে।









Leave a reply