শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধে পুলিশের বাধা, গাড়ি ভাঙচুর

|

রাজধানীর বিমানবন্দরে সড়কে বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় দোষী চালকের ফাঁসিসহ ৯ দফা দাবি জানিয়েছে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিমানবন্দর সড়ক শহিদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল এন্ড কলেজের সামনে অবস্থান নেয় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। প্রায় ছয় ঘন্টা অবরোধের পর বেলা চারটার দিকে আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করে পুলিশ। প্রতিবাদে প্রায় অর্ধশত যানবাহন ভাঙচুর করে বিক্ষুদ্ধরা।

বিচারের দাবিতে সড়ক অবরোধ করে সকাল থেকে স্লোগান দিতে থাকে শিক্ষার্থীরা। এসময় সড়কের দুইপাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। শিক্ষার্থীরা তাদের দাবি মেনে নিতে ৭ দিনের সময় বেঁধে দেয়। দাবিগুলোর মধ্যে নৌমন্ত্রী শাহজাহান খানের বক্তব্য প্রত্যাহারের বিষয়টিও রয়েছে।

আন্দোলনের একপর্যায়ে প্রতিষ্ঠানের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীসহ ১২ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের সাথে এক ঘন্টা বৈঠক করে পুলিশ, র‍্যাব ও কলেজ প্রশাসন। পরে বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানানো হলে তা প্রত্যাখ্যান করে বিক্ষুব্ধরা।

এদিকে পুলিশ জানিয়েছে, মানুষের দুর্ভোগের কথা বিবেচনা করে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয় তারা।

এ সময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা প্রায় অর্ধশত যানবাহনে ভাঙচুর চালায়।

এর আগে সকালে পুর্ব ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের সামনে মানববন্ধনের জন্য জড় হয় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। এ সময় পুলিশ তাদের মানববন্ধনে বাধা দেয় বলে অভিযোগ করেন তারা। অনাকাঙ্কিত পরিস্থিতি এড়াতেই তাদের মানববন্ধন করতে দেয়া হয়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ ।

এদিকে, বাস দুঘটনায় কলেজ শিক্ষার্থী নিহতের প্রতিবাদে রাজধানীর সাইন্স ল্যাবরোটরিতে মানববন্ধন করেছে বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা।









Leave a reply