সঙ্কটে তুরস্কের পাশে ইমরান খান

|

যুক্তরাষ্ট্রের আরোপ করা অর্থনৈতিক অবরোধের কারণে সঙ্কটের মুখে পড়া তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানের প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করেছেন পাকিস্তানের হবু প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

আজ মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, পাকিস্তানের জনগণ ও আমার পক্ষ থেকে তুরস্কের জনগণ ও প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে জানাতে চাই অর্থনৈতিক যে সঙ্কটের মধ্য দিয়ে তারা যাচ্ছেন তা থেকে উত্তরণের জন্য আমাদের প্রার্থনা তাদের সাথে রয়েছে। অতীতে যেমন সব সঙ্কটের মোকাবেলা করে তুরস্ক এগিয়ে চলেছে তেমনি এই সঙ্কট থেকেও সফলভাবে উত্তরণ করবে।

ট্রাম্প প্রশাসন কর্তৃক তুরস্ক থেকে আমদানিকৃত স্টিল ও অ্যালমুনিয়াম পণ্যে ২০ শতাংশের বদলে ৫০ শতাংশ শুল্ক আরোপের কয়েকদিনের মধ্যেই ইমরান খান এই বিবৃতি দিলেন।

এর আগে গতকাল সোমবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিবৃতি দিয়ে মার্কিন প্রশাসনের একপক্ষীয় সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে।

এদিকে আজ মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্র থেকে ইলেক্ট্রনিক পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়েছে তুরস্ক।

আঙ্কারায় এক অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট এরদোগান দেশের নাগরিকদেরকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আমরা সবাই মিলে ডলার, মুদ্রাস্ফিতি ও সুদের বিরুদ্ধে দাঁড়াবো। ঐকবদ্ধভাবে আমাদের অর্থনৈতিক স্বনির্ভরশীলতা রক্ষা করবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা মার্কিন ইলেক্ট্রনিক পণ্যে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে যাচ্ছি। তাদের আইফোন থাকলে অন্যদের স্যামসাং আছে, আর আমাদের আছে ভেসটেল।’

এরদোগানের এই ঘোষণার পরপরই তুর্কি স্মার্টফোন কোম্পানি ভেসটেলের শেয়ারের মূল্য ৮ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। ‘ভেনাস’ নামে আইফোনের মতো বিশেষ স্মার্টফোন তৈরি করে প্রতিষ্ঠানটি।

তুরস্কে কারাবন্দী একজন খ্রিষ্টান ধর্মযাজককে যুক্তরাষ্ট্রের অনুরোধে ছেড়ে না দেয়ায় ট্রাম্প প্রশাসন তুরস্কের স্টিল অ্যালমুনিয়াম জাতীয় পণ্যের ওপর শুল্ক বাড়িয়ে দেয়। এতে ডলারের বিপরীতে তুর্কি মুদ্রা লিরার দাম সাম্প্রতিক সময়ের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে পৌঁছায়। এছাড়া দুই তুর্কি মন্ত্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞাও জারি করা হয়েছে।









Leave a reply