ভারতকে বাড়তি সুবিধা, ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে বাংলাদেশের ২ ম্যাচ!

|

গ্রুপ পর্ব শেষ হওয়ার আগেই এশিয়া কাপের সুপার ফোরের অদ্ভুতুড়ে এক সূচি প্রকাশ করেছে এসিসি। যেখানে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে দুটি ম্যাচ খেলতে হবে বাংলাদেশকে। আবুধাবিতে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে রাতে ফিরেই নামতে হবে সুপার ফোরে ভারতের বিপক্ষে। অন্যদলগুলো যখন দুই ভেন্যুতেই খেলছে তখন ভারতের সব ম্যাচ রাখা হয়েছে দুবাইতে। টানা দুই ম্যাচ খেলাকে চ্যালেঞ্জিং বলে সুপার ফোরও হবে কঠিন-এমন উষ্মা প্রকাশ করেছেন টাইগার অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা।

ক্রিকেটের অভিভাবক আইসিসি, কিন্তু বাস্তবে সংস্থাটি যে কাগুজে বাঘ সেটা প্রমাণ হয়েছে অনেকবার। ক্রিকেট মোড়ল দেশগুলো বিশেষ করে ভারতের কাছে আইসিসি এবং তার সহযোগী সংস্থাগুলো যে কতটা অসহায় সেটা আরো একবার নগ্ন ভাবে প্রকাশ পেয়েছে-এশিয়া কাপের সুপার ফোরের সূচিতে।

টুর্নামেন্ট শুরুর আগে ফিক্সচারে স্পষ্ট, গ্রুপ ‘বি’র রানার্সআপ খেলবে গ্রুপ ‘এ’র চ্যাম্পিয়নের সাথে আবুধাবিতে। আর বাকি দু’দল খেলবে দুবাইতে। কিন্তু সেই নিয়মের তোয়াক্কা না করে গ্রুপ পর্বের দুই ম্যাচ বাকি থাকতেই সুপার ফোরের সূচি প্রকাশ করেছে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল-এসিসি।

যেখানে শুক্রবার বাংলাদেশকে খেলতে হবে ভারতের বিপক্ষে দুবাইতে। একই সময়ে পাকিস্তান খেলবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে। আর রোববার টাইগারদের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান আর ভারতের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান।

বিস্ময়করভাবে ভারতের সব ম্যাচ রাখা হয়েছে দুবাইতে। অথচ আনুষ্ঠানিকতার ম্যাচে পরিণত হওয়া আফগানিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশকে খেলতে হবে বৃহস্পতিবার। বর্তমানে দুবাইতে থাকা দল ১৫০ কি.মি. পথ পাড়ি দিয়ে সেই ম্যাচ খেলবে আবুধাবিতে। আর সেই ম্যাচ শেষে রাতে আবারো সেই ১৫০ কি.মি. মানে প্রায় দুই ঘণ্টার পথ পাড়ি দিতে হবে মাশরাফীদের। কেননা শুক্রবার ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ যে দুবাইতে!

২৪ ঘণ্টা পেরোনোর আগেই ৫০ ওভারের দুটি ম্যাচ ভিন্ন দুই শহরে খেলার অনন্য চ্যালেঞ্জের মুখে বাংলাদেশকে ঠেলে দিয়েছে এসিসি।

সাথে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি তাপমাত্রায় ক্রাম্পের শঙ্কা তো রয়েছেই। এমন সূচি নিয়ে অস্বস্তি লুকাতে পারেননি মাশরাফী। বলেছেন, পরপর এভাবে ২টা ম্যাচ খেলা খুব কঠিন হয়ে যাবে। ১২ ঘণ্টাও রিকভারি টাইম পাওয়া যাবে না। তারওপর ৪০ ডিগ্রির বেশি তাপমাত্রা। আমরা যদি আফগানিস্তানের বিপক্ষে পরে ফিল্ডিং করি আর ভারতের বিপক্ষে আগে ফিল্ডিং করি তাহলে আরও কঠিন হয়ে যাবে বিষয়টি।

প্রশ্ন হচ্ছে এমন সূচি বিসিবি কি জানাতো, জেনেও কি তারা মেনে নিয়েছে? যেখানে বৃহস্পতিবারেই কিনা সেই এসিসি’র সভাপতির বড় পদে বসতে যাচ্ছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

যমুনা অনলাইন: টিএম/টিএফ









Leave a reply