ঠাকুরগাঁওয়ে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, স্বামী আটক

|

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা সালান্দর বরুনাগাঁও সাতনাই তলা এলাকায় সুশীলা রাণী (২৪) নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে (২টায়) নিজবাসার টয়লেট থেকে এ লাশ উদ্বার করা হয়। নিহত সুশীলা রুহিয়া থানার দেওগাঁও গ্রামের আশারু শিং এর মেয়ে। এ ঘটনায় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মৃতার স্বামী বিপুল কে আটক করেছে পুলিশ।

নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, আড়াইমাস আগে বরুনাগাঁও গ্রামের শঙ্কর চন্দ্রের ছেলে বিপুল চন্দ্রের সাথে বিয়ে হয় সুশীলা রানীর। বিয়ের পরে থেকে স্বামী বিপুল প্রায়ই নেশাগ্রস্থ হয়ে সুশিলার উপর শারিরিক নির্যাতন করতো। বুধবার রাতেও স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। নেশা ও পরকীয়ায় বাঁধা দেয়ায় শারীরিক নির্যাতন করে তাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে স্বামী বিপুল।

সালান্দর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মুকুল জানান, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সুশীলাকে কোথাও দেখতে না পেয়ে এলাকাবাসির সন্দেহ হয় এবং ইউনিয়ন পরিষদে এসে বিষয়টি জানায় এলাকার লোকজন। পরে এবিষয়ে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ বাসার ভেতর তল্লাশি করে টয়লেট থেকে সুশীলা রাণীর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। তিনি জানান, এঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মৃতার স্বামী বিপুল কে আটক করা হয়েছে ও একটি মামলা করা হবে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা তদন্ত করে দেখছে পুলিশ। তদন্ত রিপোর্ট পেলে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।









Leave a reply