খাশোগি বিপদজনক ছিলেন: যুবরাজ সালমান

|

জামাল খাশোগি ছিলেন মুসলিম ব্রাদারহুডের সদস্য এবং বিপদজনক। হোয়াইট হাউজকে এমন তথ্যই দিয়েছিলেন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। সৌদি সাংবাদিকের হত্যাকাণ্ডের পর মার্কিন প্রেসিডেন্টের নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টনের সাথে ফোনালাপে এ দাবি করেন যুবরাজ। আর সেই কথপোকথন ফাঁস করলো আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট। বৃহস্পতিবার পত্রিকাটির অনুসন্ধানি প্রতিবেদনে এসব কথা তুলে ধরা হয়। এদিকে বিশ্ব তোলপাড় করা এ হত্যাকাণ্ডের এক মাস পরও রহস্যের কূল-কিনারা না হওয়ায় ক্ষুব্ধ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কর্মীরা।

২ অক্টোবর ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশের পরই নিখোঁজ হন সাংবাদিক জামাল খাশোগি। শুরুতে অস্বীকৃতি জানালেও পরে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে তাকে হত্যার কথা স্বীকার করে সৌদি সরকার। সৌদি আরব এবং তুরস্ক আলাদা তদন্ত চালালেও, তা নিয়ে রয়েছে ধোঁয়াশা। তবে গণমাধ্যমের অনুসন্ধানে প্রতিদিনই উঠে আসছে চমকপ্রদ বিভিন্ন তথ্য।

সবশেষ এ নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট। যাতে বলা হয়, এই হত্যাকাণ্ডের পর যুক্তরাষ্ট্রের সাথে যোগাযোগ করেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। মার্কিন প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা জন বোল্টনকে সালমান জানান, খাশোগি ছিলেন মিসরের নিষিদ্ধ সংগঠন মুসলিম ব্রাদারহুডের সদস্য এবং বিপদজনক। একই কথা জানান, ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাতা জ্যারেড কুশনারকেও।

এ ঘটনার পর স্বভাবতই ক্ষুব্ধ গণমাধ্যম কর্মীদের আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলো। প্যারিসে আয়োজিত বিক্ষোভ সভায় আইফেল টাওয়ারের আলো নিভিয়ে প্রতিবাদ জানানো হয়।

খাশোগি হত্যার অভিযোগে দায়সারাভাবে ১৮ জনকে আটক করেছে সৌদি আরব। তবে হত্যাকাণ্ডের মূল হোতা হিসেবে যুবরাজের সম্পৃক্ততার বিষয়ে তোলপাড় চলছে বিশ্বে। ফ্রান্স, যুক্তরাজ্যও বিবৃতি দিয়ে দায়ী করেছে সৌদি সরকারকে। এমনকি মিত্র যুক্তরাষ্ট্রও কৈফিয়ত চাইছে সমালোচিত এই হত্যাকাণ্ডের।









Leave a reply