ইমরুলের দুর্দান্ত ক্যাচে ফিরলেন টেইলর

|

দলীয় ১৯ রানেই প্রথম উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। কিন্তু তা আমলে না নিয়ে নেমেই স্ট্রোকের ফুলঝুরি ছোটাতে থাকেন ব্রেন্ডন টেইলর। অতি রোমাঞ্চপ্রিয়তার খেসারতও দিতে হলো তাকে। এবার তার পথও রুদ্ধ হলো। অভিজ্ঞ উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে দিলেন মায়াবি ঘাতক তাইজুল ইসলাম।

তবে এতে বোলারের যতটা না কৃতিত্ব তার চেয়েও বেশি ফিল্ডারের। দুর্দান্ত ক্যাচে টেইলরকে ফিরিয়েছেন ইমরুল কায়েস। মিড অফ থেকে অনেকটা দৌড়ে, পুরোটা সময় বলের দিকে চোখ রেখে দুহাতে দারুণ ক্যাচ নেন তিনি।

শেষ খবর পর্যন্ত নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ২ উইকেটে ৫১ রান করেছেন রোডেশিয়ানরা। এতে অতিথিদের লিড দাঁড়িয়েছে ১৯০ রান। ১৫ রান নিয়ে ক্রিজে আছেন আছেন মাসাকাদজা। তার নতুন সঙ্গী ইনফর্ম শন উইলিয়ামস। এ লিডকে যথাসম্ভব বড় করার চেষ্টা থাকবে তাদের।

দ্বিতীয় দিনের ১ রান নিয়ে তৃতীয় দিনে ব্যাট করতে নামে জিম্বাবুয়ে। হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ১ এবং ব্রায়ান চারি শূন্য রান নিয়ে খেলা শুরু করেন। সঙ্গে থাকে ১৪০ রানের লিডের আত্মবিশ্বাস। যত দ্রুত সম্ভব জিম্বাবুয়েকে অলআউট করার প্রত্যয় নিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ। ওপেনিং জুটি ভাঙতে আপ্রাণ চেষ্টা চালান টাইগাররা। একটু বিলম্বে হলেও সাফল্য পান তারা। ব্রায়ান চারিকে সরাসরি বোল্ড করে সাজঘরে ফেরত পাঠান মেহেদী হাসান মিরাজ।

প্রথম ইনিংসে জিম্বাবুয়ের ২৮২ রানের জবাবে ১৪৩ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। ব্যাটিং ব্যর্থতায় প্রতিরোধ গড়তে পারেননি কোনো টাইগার ব্যাটসম্যানই। ধ্বংসস্তূপের মাঝে দাঁড়িয়ে সর্বোচ্চ ৪১* রান করেন অভিষিক্ত আরিফুল হক। এছাড়া মুশফিকুর রহিমের ব্যাট থেকে আসে ৩১ রান।

দ্বিতীয় দিনে জিম্বাবুয়ে বোলারদের কোনোভাবেই পড়তে পারেননি বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা। টেন্ডাই চাতারা ও কাইল জার্ভিসের পেস এবং সিকান্দার রাজার স্পিনে নাকাল হন তারা। চাতারা ও রাজা নেন ৩টি করে উইকেট। ২ উইকেট শিকার করেন জার্ভিস। পরে ব্যাট করতেও নামেন সফরকারীরা। তারা ১ রান তুলতেই দিনের খেলা শেষ হয়। এতে ১৪০ রানের লিড নিয়ে মাঠ ছাড়েন মাসাকাদজা বাহিনী।









Leave a reply