ব্যাংক গ্রাহকের দেড় লাখ টাকা লুট, সিসি ক্যামেরায় চিহ্নিত প্রতারকরা

|

স্টাফ রিপোর্টার, মাদারীপুর

মাদারীপুরের শিবচরে রুপালী ব্যাংক থেকে গ্রাহকের দেড় লাখ টাকা লুটের ঘটনা ঘটেছে। মাত্র ৫-৬ মিনিটে ৪ প্রতারক টাকা ছিনতাই করে নির্বিঘ্নে সটকে পড়ে। এ সময় ব্যাংকের গেটে কোন নিরাপত্তা প্রহরী ছিলো না।

তবে প্রতারকরা পালানোর পর ব্যাংকের সিসি ক্যামেরায় ৪ জনকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে। যদিও ব্যাংক কর্তৃপক্ষ দোষীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নেয়নি। ভুক্তভোগীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করে ও ব্যাংক সুত্রে জানা যায়, আজ সোমবার বেলা ১১ টার দিক শিবচর পৌর বাজারের স্বর্ণকারপট্টির রুপালী ব্যাংকে সূর্য্য মিয়া গোমস্তা নামের এক গ্রাহক যান। ওই গ্রাহক তার জমি বিক্রির ৩ লাখ টাকা জমা দিতে কাউন্টারে গেলে পেছন থেকে ৪ প্রতারক গ্রাহক সেজে তার পেছনে ও পাশে দাঁড়ায়। সূর্য্য মিয়া টাকা জমা দেয়ার জন্য কাউন্টারের উপর টাকা রাখেন।

এক পর্যায়ে এক প্রতারক তাকে নীচে তার টাকা পড়েছে বলে জানালে সূর্য্য মিয়া নীচু হয়ে টাকা তুলতে শুরু করেন। এ সুযোগে প্রতারকরা তার দেড় লাখ টাকা নিয়ে দ্রুত সটকে পড়ে। পরে তাদের অনেক খোঁজাখুজি করেও পাওয়া যায়নি। সূর্য্য মিয়া গোমস্তা শিবচর পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের খবিরউদ্দিন গোমস্তার ছেলে।

ফুটেজে দেখা যায়, বেলা ১১ টা ৭ মিনিটে সূর্য্য মিয়া গোমস্তা ব্যাংকে ঢুকেন। ব্যাংকটিতে বড় অংকের লেনদেন চললেও কোন নিরাপত্তা প্রহরী নেই। ১১ টা ৮ মিনিটে সাদা শার্ট পরিহিত এক প্রতারক প্রথম ব্যাংকে ঢুকে। এক মিনিট পরেই আরেক প্রতারক হাতে একটি ব্যাগ নিয়ে ঢুকে। কাউন্টারে ভীড় থাকায় টাকা জমা দিতে বিলম্ব হচ্ছিল। তখন দুই প্রতারক নজরদারিতে রাখছিল সূর্য্য মিয়াকে।

১১ টা ১৩ মিনিটে কাউন্টার পরিবর্তন করে সূর্য্য মিয়া পাশের কাউন্টারে গেলে গ্রাহক বেশে ৪ প্রতারক তাকে ঘিরে ধরে। এক প্রতারক নীচে তার টাকা পড়েছে বলে জানালে সূর্য্য মিয়া নীচু হয়ে টাকা তুলা শুরু করেন। এই সময়েই প্রতারকরা কাউন্টারের উপরে রাখা বাকি দেড় লাখ টাকা নিয়ে দ্রুত সটকে পড়ে।

শিবচর রুপালী ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার মোঃ আবু তালেব মিয়া বলেন, এক গ্রাহক আমাদের কাছে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ জানালে সিসিটিভিতে দেখি ৪ প্রতারক এ ঘটনা ঘটিয়েছে। গ্রাহকের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ব্যাংকে এসে বিস্তারিত জেনে গেছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী শিবচর থানার এসআই মোঃ খলিল বলেন, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। আক্রান্ত ব্যক্তি থানায় এখনো অভিযোগ করেননি।









Leave a reply