বিএনপির প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছে জামায়াতের ২৫ নেতা

|

২০ দলীয় জোটের শরীক দল জামায়াতে ইসলামী ২৫টি আসন নির্বাচন করছে। এছাড়া ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে জানা গেছে।

বুধবার দুপুরে নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধনহীন জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান ঢাকা-১৫ আসনের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় দলটির কেন্দ্রীয় নেতা মতিউর রহমান আকন্দ এ কথা জানান।

ডা. শফিকুর রহমান ঢাকা-১৫ আসনের জন্য মনোনয়ন পত্র জমা দেয়ার সময় দেখা যায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল সাক্ষর করা মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন।

এরআগে জামায়াতের প্রার্থীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণের প্রস্তুতি নিয়েছিলো ও মনোনয়ন পত্র তুলেছিলো।

মোট ২৫ আসনে যারা মনোনয়ন পেয়েছেন তারা হলেন…

১. ঠাকুরগাঁও-২: মাওলানা আবদুল হাকিম

২. দিনাজপুর-১: মাওলানা মোহাম্মদ হানিফ

৩. দিনাজপুর-৬: মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম

৪. নীলফামারী-২: মুক্তিযোদ্ধা মনিরুজ্জামান মন্টু

৫. নীলফামারী-৩: মোহাম্মদ আজিজুল ইসলাম

৬. রংপুর-৫: অধ্যাপক গোলাম রব্বানী

৭. গাইবান্ধা-১: মাজেদুর রহমান সরকার

৮. সিরাজগঞ্জ-৪: মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান

৯. পাবনা-৫: মাওলানা ইকবাল হুসাইন

১০. ঝিনাইদহ-৩: অধ্যাপক মতিয়ার রহমান

১১. যশোর-২: আবু সাঈদ মুহাম্মদ শাহাদাত হোসাইন

১২. বাগেরহাট-৩: অ্যাডভোকেট আবদুল ওয়াদুদ

১৩. বাগেরহাট-৪: অধ্যাপক আবদুল আলীম

১৪. খুলনা-৫: অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার

১৫. খুলনা-৬: মাওলানা আবুল কালাম আযাদ

১৬. সাতক্ষীরা-২: মুহাদ্দিস আবদুল খালেক

১৭. সাতক্ষীরা-৩: মুফতি রবিউল বাশার

১৮. সাতক্ষীরা-৪: গাজী নজরুল ইসলাম

১৯. পিরোজপুর-১: আলহাজ্ব শামীম সাঈদী।

২০. ঢাকা-১৫: ডা. শফিকুর রহমান

২১. সিলেট-৫: মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী

২২. সিলেট-৬: মাওলানা হাবিবুর রহমান

২৩. কুমিল্লা-১১: ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মো. তাহের

২৪. চট্টগ্রাম ১৫: আ ন ম শামসুল ইসলাম

২৫. কক্সবাজার-২: হামিদুর রহমান আযাদ

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালে হাইকোর্ট জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল ও অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন। দলটির নিবন্ধন বাতিল করে গত ২৮ অক্টোবর প্রজ্ঞাপন জারি করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ফলে জামায়াতের দলগতভাবে নির্বাচনে অংশ নেয়ার পথ বন্ধ হয়ে যায়।

তবে দলটির নেতারা স্বতন্ত্র প্রার্থী বা অন্য কোনো দলের প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করতে পারবেন।









Leave a reply