২০ দলের শরিকরা কে কয়টি আসন পেল

|

সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ধানের শীষের প্রার্থীদের চূড়ান্ত মনোনয়নের চিঠি দিল বিএনপি। বিএনপি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ শরিকরা এবার বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবেন।

আজ মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিনের কয়েক ঘন্টা আগে শনিবার রাতে জাতীয় ঐক্যফন্ট ও ২০ দলের শরিকদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়। বিএনপির আংশিক প্রার্থী তালিকা করা হয় শুক্রবার রাতে।

এতে দেখা গেছে, ৩০০ আসনের মধ্যে ৫৭ আসনে জোটের শরিকদের ছাড় দিয়েছে বিএনপি। এর মধ্যে ২০-দলীয় জোটের শরিকদের ৩৮ আর ঐক্যফ্রন্টের শরিদের জন্য ছেড়ে দেয়া হয়েছে ১৯টি আসন। বাকী ২৪৩ টি আসন নিজেদের হাতে রেখেছে বিএনপি। শনিবার রাতে এ সংক্রান্ত চিঠি শরিক ও ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের হাতে তুলে দেয়া হয়।

জানা গেছে, বিএনপির দুই জোটে দল রয়েছে ২৭টি। এর মধ্যে ২০ দলীয় জোটে রয়েছে ২৩ দল। আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে দল আছে চারটি।

শরিকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আসনে জামায়াতকে ছাড় দিয়েছে বিএনপি। ২০-দলীয় শরিকদের মধ্যে জামায়াতে ইসলামীকে ২২টি আসন দেয়া হয়েছে। যদিও জামায়াতকে আসন বণ্টনের শুরুতে ২৫টি আসনে ছাড় দেয়ার কথা ছিল। এ নিয়ে জামায়াতে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা গেছে, শেষ মুহূর্তে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা বড় হওয়ায় ২০ দলকে কিছু আসন কম দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপি। স্বভাবতই জামায়াতের আসন বেশি হওয়ায় তাদের থেকে তিনটি আসন ছেঁটে ফেলা হয়েছে।

বিএনপির মহাসচিবসহ শীর্ষ নেতারা আগেই বলে রেখেছিলেন-দুই জোটের শরিকদের সর্বোচ্চ ৬০টি আসন দেয়া হবে। এর মধ্যে জামায়াত-ই সর্বাধিক আসন পাবে সেটিও মোটামুটি নিশ্চিত ছিল।

বিএনপি নেতারা শুরুতে চেয়েছিলেন ৪০-৪২ আসন দেয়া হবে ২০ দলকে। আর ১৫-১৮টি আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে দেয়া হবে। ২০ দলের সঙ্গে এটি নিয়ে বিএনপির এক ধরনের সমঝোতাও হয়ে গিয়েছিল।

২০ দলে জামায়াতের পরে সর্বাধিক আসন পেয়েছে কর্নেল (অব.) অলি আহমেদের নেতৃত্বাধীন এলডিপি।

২০ দলের শরিকদের আসন

বিএনপি ২৪৩;

জামায়াতে ইসলামী ২২টি;

এলডিপি ৫টি;

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ৩;

জাতীয় পার্টি (জাফর) ২;

বিজেপি ১;

এনপিপি ১;

বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি ১;

খেলাফত মজলিস ২;

পিপলস পার্টি অব বাংলাদেশকে ১টি আসন দিয়েছে বিএনপি।









Leave a reply