অনাস্থা প্রস্তাব এড়াতে মরিয়া ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

|

ব্রিটিশ পার্লামেন্টে অনাস্থা প্রস্তাব এড়াতে মরিয়া ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। তাই শেষ মুহূর্তেও ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে দৌঁড়ঝাপের কমতি নেই তার। বৃহস্পতিবার ব্রেক্সিট ইস্যুতে ইইউ সম্মেলনকে সামনে রেখে, মঙ্গলবার এক দিনেই সফর করেন নেদারল্যান্ড, জার্মানি ও বেলজিয়াম।

ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে চুড়ান্ত ভোটাভুটির কথা ছিল সোমবারই। তবে আইনপ্রণেতাদের বিরোধীতার আশঙ্কায় শেষ মুহূর্তে ভোটের সিদ্ধান্ত স্থগিত করলেন থেরেসা মে। সময় নিলেন আরও কয়েকটি দিন। এই সময়ে ব্রেক্সিট ইস্যুতে বৃহস্পতিবারের সম্মেলনকে সামনে রেখে আরেক দফা ইইউর নেতাদের দ্বারস্থ হন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। চেষ্টা, শেষ মুহূর্তে ব্রেক্সিট চুক্তিতে কিছুটা পরিবর্তনের। যাতে নিজ দেশের এমপিদের সমর্থন আদায় সম্ভব হয়।

থেরেসা মে বলেন, ব্রিটিশ গণভোটের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই ইইউর সাথে চুক্তি হয়েছে। তবে পার্লামেন্টে দেয়া অঙ্গীকার রাখতেই এখনও তাতে পরিবর্তনে আলোচনা করছি। সবার সাথে একমত হওয়াটা মুশকিল। তারপরও আমার প্রচেষ্টা সার্বিক গ্রহণযোগ্য একটি চুক্তির।

বেলজিয়ামে ইইউ কমিশনের প্রেসিডেন্ট জ্যঁ ক্লদ জাঙ্কার এবং ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্কের সাথে সাক্ষাৎ করেন মে। একই দিনে ডাচ প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট এবং জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেলের সাথেও বৈঠক করেন তিনি। চুক্তিতে উল্লেখিত আয়ারল্যান্ড সীমান্ত ইস্যু নিয়ে ব্রিটিশ এমপিদের বিরোধীতার বিষয়গুলো তুলে ধরেন তিনি।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোনো চুক্তি ছাড়াই বেরিয়ে যাবার মতো পরিস্থিতি পেরিয়ে এসেছি আমরা। এবার প্রচেষ্টা, সর্বোচ্চ সুবিধা আদায়ের। সে লক্ষ্যেই ইইউ নেতাদের কাছে ব্রিটিশ এমপিদের উদ্বেগের বিষয়গুলো তুলে ধরেছি। আবারও বিবেচনার জন্য দেনদরবার চালাচ্ছি।









Leave a reply