মিরাজের ঘূর্ণিতে কাঁপছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

|

টেস্ট সিরিজে দুর্দান্ত বল করেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ওয়ানডে সিরিজেও সেই ধারা বজায় রেখেছেন তিনি। সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচেও স্বমহিমায় আবির্ভূত হয়েছে এ অফস্পিনার। তার বল খেলতেই পারছেন না ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ব্যাটসম্যানরা। আসছেন আর যাচ্ছেন। সবশেষ মুশফিকুর রহিমের তালুবন্দি করে রোভম্যান পাওয়েলকে ফিরিয়ে দিলেন তিনি।

শেষ খবর পর্যন্ত ২৬ ওভারে ৫ উইকেটে ৯৯ রান করে কাঁপছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এ ৫ উইকেটের চারটিই শিকার মিরাজের। এখন পথের কাঁটা হয়ে রয়েছেন গেল ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান শাই হোপ। ইতিমধ্যে ফিফটি তুলে নিয়ে স্বাগতিক শিবিরে চোখ রাঙাচ্ছেন তিনি। হোপ ৫৫ রান নিয়ে ব্যাট করছেন। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে তার সঙ্গে যোগ দিয়েছেন রোস্টন চেজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৩ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে দাপুটে জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। তবে মিরপুরে পরের ম্যাচেই ধরা খায় স্বাগতিকরা। ফলে অঘোষিত ফাইনালে পরিণত হয় তৃতীয় ওয়ানডে। সেই লড়াইয়ে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে বোলিং নেন টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। শিশির ফ্যাক্টর মাথায় রেখে এ সিদ্ধান্ত নেন তিনি। তার সিদ্ধান্তকে যৌক্তিক প্রমাণ করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। শুরুতেই সাফল্য এনে দেন তিনি। মোহাম্মদ মিঠুনের তালুবন্দি করে চন্দ্রপল হেমরাজকে ফিরিয়ে দেন এ অফস্পিনার।

পরে ড্যারেন ব্রাভোকে নিয়ে প্রাথমিক ধাক্কা কাটিয়ে ওঠেন শাই হোপ। তাতে এগিয়ে যাচ্ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দারুণ খেলছিলেন তারা। ক্রিজে জমাট বেঁধে যাচ্ছিলেন। তবে বাদ সাধেন সেই মিরাজ। ব্রাভোকে সরাসরি বোল্ড করে ফেরান তিনি। তাতে ভাঙে ৪২ রানের জুটি।

তৃতীয় উইকেটে মারলন স্যামুয়েলসকে নিয়ে এগিয়ে যান হোপ। ভালোভাবেই দলকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন তারা। তবে হঠাৎই ছন্দপতন। খেই হারান স্যামুয়েলস। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের বলে ইনসাইড এজ হয়ে ফেরেন তিনি। এদিন রুবেল হোসেনের পরিবর্তে একাদশে অন্তর্ভুক্ত হন সাইফ। আস্থার প্রতিদানও দেন। এতে চাপে পড়ে সফরকারীরা। সেই চাপের মধ্যে এলবিডব্লিউ ফাঁদে ফেলে শিমরন হেটমায়ারকে ফিরিয়ে দেন মিরাজ।

এ ম্যাচ দিয়ে ওয়ানডেতে অভিষেক হয়েছে দৃষ্টিনন্দন ও নয়নাভিরাম সিলেট স্টেডিয়ামের। দেশের মাঠে সম্ভবত এটিই মাশরাফির শেষ ম্যাচ। এ ম্যাচ জিতে ক্যাপ্টেনকে শিরোপা উপহার দিতে চান সাকিব-মুশফিকরা। সিরিজ নির্ণায়ক ম্যাচে বাংলাদেশ একাদশে এসেছে দুই পরিবর্তন। গেল দুই ম্যাচে ব্যাটিং ব্যর্থতার খেসারত গুনে ছিটকে গেছেন ইমরুল কায়েস। তার জায়গায় ঢুকেছেন ইনফর্ম মোহাম্মদ মিঠুন। উভয় ম্যাচেই খরুচে বোলিং করেছেন রুবেল হোসেন। সঙ্গত কারণে তিনিও বাদ পড়েছেন। তার স্থানে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

অন্যদিকে একাদশে এক পরিবর্তন এনেছে ক্যারিবীয়রা। ইনজুরির কারণে বাইরে চলে গেছেন গতির ঝড় তোলা ওশান টমাস। তার পরিবর্তে খেলছেন স্পিনিং অলরাউন্ডার ফ্যাবিয়ান অ্যালেন।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল,লিটন কুমার দাস, সৌম্য সরকার,মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ মিঠুন,সাইফউদ্দিন, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), মেহেদী হাসান মিরাজ ও মোস্তাফিজুর রহমান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ: শাই হোপ, চন্দ্রপল হেমরাজ, ড্যারেন ব্রাভো, মারলন স্যামুয়েলস, শিমরন হেটমায়ার, রোভম্যান পাওয়েল (অধিনায়ক), রোস্টন চেজ, কিমো পল, দেবেন্দ্র বিশু, কেমার রোচ ও ফ্যাবিয়ান অ্যালেন।









Leave a reply