নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা লতিফ সিদ্দিকীর

|

আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা ও টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী লতিফ সিদ্দিকী নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। আজ সকালে নির্বাচন কমিশনারের সাথে দেখা করে তার অভিযোগ জানান ও নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন।

লতিফ সিদ্দিকী জানান, প্রতিদিন আমার সমর্থকদের গ্রেফতার করে হয়রানি করছে, সংসদ সদস্যের সরাসরি হস্তক্ষেপ, ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তার উসকানিতে আমার অফিস ভেঙে দিচ্ছে, পরিস্থিতিতে এহেন অবনতিতে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে।


তিনি আরও জানান, আমার ওপর হামলা করে গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এলাকাকে ত্রাস ও সন্ত্রাসের জনপদে পরিনত করছে। আমি রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। দীর্ঘদিন পুলিশি জুলুমের বিরুদ্ধে লড়েছি। কিন্তু পুলিশ এমন উলঙ্গভাবে কোন প্রার্থীর পক্ষে সমর্থন করে নিরীহ মানুষদের হুমকি দেয়ে, আমার মিছিল বন্ধ করে সংসদ সদস্যের মিছিলে সহযোগিতা করে এমন দেখিনি। পুলিশের অত্যাচারের পরও আন্দোলন করা যায়, পুলিশ বিপক্ষে অবস্থান নিলে নির্বাচন করা যায় না।

এরআগে লতিফ সিদ্দিকীর নির্বাচনী প্রচারের কর্মী ও গাড়িতে হামলা অভিযোগ তিনি আমরণ অনশন করেন জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে। অনশনের চতুর্থ দিনে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

লতিফ সিদ্দিকী ১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য হন তিনি। এরপর ১৯৭৩, ১৯৯৬ ও ২০০৮ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে মন্ত্রী হন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত হন।









Leave a reply