ভোট নিয়ে কোন আগ্রহ নেই কুড়িগ্রাম চরাঞ্চলবাসীর

|

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

সংসদ কিংবা ইউনিয়সহ কোন ভোটের সময়েই ভোট আনন্দ বা উৎসব বলতে কোন বিষয়ে তেমন আগ্রহ থাকেনা কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলবাসীর।
এর কারণ হিসেবে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের অবহেলা, অর্থনৈতিক সংকট আর পর্যাপ্ত কর্মসংস্থান না থাকাকেই দায়ী করছেন এই জনপদের পিছিয়ে পড়া অবহেলিত মানুষজন।

দেশের সর্বশেষ উত্তরের জেলা কুড়িগ্রাম। এই জেলার তিনদিকেই প্রায় ৩কি.মি. ভারতীয় সীমানা বেষ্টিত। এছাড়াও দেশের বৃহত্তম নদ-নদীময় জেলায় রয়েছে ১৬টি নদ-নদীর ৩১৬কি.মি. দীর্ঘ নদীপথ। এখানে প্রায় সাড়ে চার শতাধিক ছোট-বড় চরাঞ্চল। এরমধ্যে প্রায় আড়াই থেকে ৩ শতাধিক চরে মানুষের বসবাস।

প্রত্যন্ত চরাঞ্চলে বসবাস করছে প্রায় ৫ লক্ষাধিক মানুষ। অধিকাংশ চরাঞ্চল বাসীকে সারা বছরই নদী ভাঙ্গনের স্বীকার হতে হয়। কৃষি নির্ভর জেলাতে কোন শিল্প প্রতিষ্ঠান না থাকায় বছরের বেশির ভাগ সময় বেকার থাকতে হয়। মৌসুম ভিত্তিক কাজ থাকলেও বছরের ৫/৬ মাস কাজ থাকে না দারিদ্র পীড়িত এই জনপদের মানুষের হাতে। ফলে তারা রাজধানী সহ উন্নত শহর গুলোতে ছুটেন কাজের সন্ধানে। অনেকেই গার্মেন্টস গুলোতে চাকুরি করেন। আবার অনেকেই সরকারি-বেসরকারি চাকুরির সুবাদে থেকে যান কর্মস্থলে। সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে মঙ্গা শব্দটি না থাকলেও এখনো এই জনপদে যোগাযোগ ব্যবস্থা, শিক্ষা, কর্মসংস্থান, অবকাঠামো উন্নয়ন তেমন একটা দৃশ্যমান নয়।

কুড়িগ্রাম জেলার ৯টি উপজেলা, ৭৩টি ইউনিয়ন এবং ৩টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত হয়েছে ৪টি আসন। এরমধ্যে প্রায় ৬০/৬৫টি ইউনিয়ন নদীর সাথে সম্পৃক্ত। অনেক ইউনিয়নের এক তৃতীয়াংশ নদী গর্ভে চলে গেছে।

জেলার প্রায় ২১লাখ মানুষের মধ্যে ভোটার ১৫লাখ ৪৭হাজার ২জন। এরমধ্যে নারী ৭লাখ ৮৫হাজার ৮৫৭জন এবং পুরুষ ৭লাখ ৬১হাজার ১৪৫জন।

তথ্য সূত্রে জানা যায়,
কুড়িগ্রাম-১ আসনে ১৯৭৩ সালে ভোটার ছিল ১লাখ ২৫হাজার ১০৪জন। ভোটার উপস্থিতি ৫২.২৬%।
১৯৭৯ সালে ভোটার ১লাখ ৩৬হাজার ৪৫৬জনে ভোটার উপস্থিতি ৪৬.৫৯%।
১৯৯১ সালে ভোটার ছিল ২লাখ ৫৯হাজার ৮০৬জন। ভোটার উপস্থিতি ৪৬.৫১%।
১৯৯৬সালে ভোটার ২লাখ ৫০হাজার ৩জনের মধ্যে ভোটার উপস্থিতি ছিল ৬৭.৬৭%।
২০০১সালে ভোটার ৩লাখ ২২হাজার ৪৪২জন। ভোটার উপস্থিতি থাকেন ৭৯.৪৩%।
২০০৮সালে ৩লাখ ৬৪হাজার ৮৬২জনের মধ্যে উপস্থিতি ৮৯.২৫%।

কুড়িগ্রাম-২ আসনে ১৯৭৩ সালে ভোটার ছিল ১লাখ ১৯হাজার ৮১২জন। উপস্থিতি ৪৫.৫০%।
১৯৭৯ সালে ভোটার ১লাখ ৩৯হাজার ৯৫৫জন। উপস্থিতি ৪৫.২৪%।
১৯৯১সালে ২লাখ ৭৬হাজার ৯৭৩জন। উপস্থিতি ৫১.২৩%।
১৯৯৬সালে ভোটার ২লাখ ৬৩হাজার ৪৪৩জনের মধ্যে উপস্থিতি ছিল ৭৩.৬৭%।
২০০১সালে ভোটার ৩লাখ ৪০হাজার ৯৮জন। উপস্থিতি ৭৩.৯৩%।
২০০৮সালে ৩লাখ ৩২হাজার ৩৯২জনের মধ্যে উপস্থিতি ৮৮.০২%।

কুড়িগ্রাম-৩ আসনে ১৯৭৩ সালে ভোটার ছিল ১লাখ ২১হাজার ৮৬৫জন। উপস্থিতি ৪৩.৮৯%।
১৯৭৯ সালে ভোটার ১লাখ ৫০হাজার ৫২৮জন। উপস্থিতি ৪৮.৮১%।
১৯৯১সালে ১লাখ ৯৯হাজার ১০৪জন। উপস্থিতি ৪৪.৪১%।
১৯৯৬সালে ভোটার ১লাখ ৮০হাজার ৭৬৬জনের মধ্যে উপস্থিতি ছিল ৬২.৯০%।
২০০১সালে ভোটার ২লাখ ৩৬হাজার ৫০১জন। উপস্থিতি থাকেন ৭১.৯৫%।
২০০৮সালে ২লাখ ৯৮হাজার ৮৬৩জনের মধ্যে উপস্থিতি ৮৩.৯৩%।

কুড়িগ্রাম-৪ আসনে ১৯৭৩ সালে ভোটার ছিল ১লাখ ২২হাজার ২৩৯জন। ভোটার উপস্থিতি ৪৪.৮৫%।
১৯৭৯ সালে ভোটার ১লাখ ০৮ হাজার ৪৬০জন। উপস্থিতি ৪৩.৩১%।
১৯৯১সালে ১লাখ ৮৪হাজার ১৭৩জন। ভোটার উপস্থিতি ৪১.৩৯%।
১৯৯৬সালে ভোটার ১লাখ ৬১হাজার ৯৭৬জনের মধ্যে ভোটার উপস্থিতি ছিল ৬৬.১৮%।
২০০১সালে ভোটার ২লাখ ১২হাজার ৫৭৪জন। উপস্থিতি থাকেন ৭৩.৬৮%।
২০০৮সালে ২লাখ ২৮হাজার ৫৪৪জনের মধ্যে উপস্থিতি ৮৯.৪৭%।

সদর উপজেলার চর যাত্রাপুরের বাসিন্দা মজিবর,আফজাল, লাইলী বেগম ও রৌমারী উপজেলার ফুলুয়ার চরের বাসিন্দা হাসেম, গার্মেন্টস কর্মী শিউলি আক্তার জানান, নির্বাচিত প্রতিনিধিদের কাছে চরবাসীর তেমন কোন মূল্যায়ন থাকে না। তারা অনেক প্রতিশ্রুতি দিলেও ভোট শেষে আর দেখা মেলে না। তাই কর্মস্থল থেকে টাকা-পয়সা খরচ করে এসে ভোট দেবার ইচ্ছে জাগে না।

অপর দিকে ঢাকায় বেসরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা মামুনুর রহমান জানান, কুড়িগ্রামের সাথে বাস কিংবা রেল যোগাযোগ তেমন উন্নত নয়। কুড়িগ্রাম-ঢাকা যাওয়া আসা একদিন চলে যায়। অর্থ খরচটিও বেশি পড়ে। ফলে প্রতিষ্ঠানে ছুটি পেলেও সার্বিক পরিস্থিতির জন্য ভোট দিতে যাওয়া অসম্ভব হয়ে পড়ে।

যাত্রাপুর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম জানান, নদী বেষ্টিত যাত্রাপুর ইউনিয়নে অনেক পরিবারই আছে তাদের কেউ না কেউ জেলার বাইরে গিয়ে কাজে। তারা অনেকেই ইউনিয়ন বা সংসদ নির্বাচনে ভোট দিতে আসেনা। তাদের কাছে ভোটের চেয়ে সংসার চালানোটাই বড় হয়ে দাড়ায়। এতে করে অনেকেই ভোট দেয়া থেকে অনুপস্থিত থাকেন।

এই বিষয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম রাকিব জানান, ভোটারদের অনুপস্থিতিটা বেশি লক্ষ্য করা যায় ইউনিয়ন নির্বাচনে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে উৎসব মুখর পরিবেশ থাকায় অনুপস্থিতির প্রভাব তেমনটা পড়ে না। এছাড়াও ভোটারদের কর্মস্থলে অবস্থান করা, অসচেতনতা এবং মৃত ব্যক্তির নাম সময় মতো ভোটার তালিকা থেকে কর্তন না হওয়াকেও ভোটার অনুপস্থিতির কারণ হিসেবে মনে করেন এই কর্মকর্তা।









Leave a reply