গাইবান্ধায় ট্রেনের নিচে লাফ দিয়ে ও গলায় রশি পেঁচিয়ে ২ গৃহবধূর আত্মহত্যা

|

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:

গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় ট্রেনের নিচে লাফ দিয়ে ও গলায় রশি পেঁচিয়ে দুই গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। তারা হলেন জুবা বেগম (৪৮) ও আলিমন বেওয়া (৪৬)।

শনিবার ভোর রাতে ও দুপুরে সাদুল্যাপুর উপজেলার ধাপেরহাটের তিলকপাড়া গ্রামে ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গার রেল লাইনে পৃথক এ ঘটনা ঘটে।

জুবা বেগম সাদুল্যাপুর উপজেলার ধাপেরহাটের তিলকপাড়া গ্রামের জাবেদ আলীর স্ত্রী। জুবা বেগম তিন সন্তানের জননী। এছাড়া আলিমন বেওয়া সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের মনমথ (কানারমোড়) গ্রামের মৃত্যু মোসলেম আলীর স্ত্রী।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, জুবা বেগম দীর্ঘদিন থেকে প্যারালাইসিসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। দিনমজুর স্বামীর সংসার ছিলো অভাব অনাটনে। চিকিৎসা ও ঠিকমতো সংসার না চলায় মনের দু:খে জুবা বেগম শনিবার ভোর রাতে সকলের অজান্তে নিজ ঘরে গলায় রশি পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।

অপরদিকে, শনিবার দুপুরে সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙ্গার লিটন মোড়ের অদুরে রেল লাইনে আলিমন বেওয়া (৪৬) নামে গৃহবধূ কাউনিয়াগামী সেভেন আপ ট্রেনের নিচ লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ও স্বজনরা এসে রেল লাইন থেকে আলিমন বেওয়ার লাশ উদ্ধার করে।

বামনডাঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) জিয়া জানান, আলিমন বেগম দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সারে আক্রান্ত। স্বামী না থাকায় অভাবের কারণে তিনি চিকিৎসা করতে পারছিলেন না। এ কারণে মনের দু:খে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। রেল লাইনে আত্মহত্যার ঘটনাটি জিআরপি পুলিশকে জানানো হয়েছে।

ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ পরিদর্শক আব্দুর রশিদ সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে নিজ ঘরের তীর (ধর্ণা) থেকে জুবা বেগমের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় সাদুল্যাপুর থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে।









Leave a reply