ঠাকুরগাঁও সীমান্তে আবারো বিএসএয়ের গুলিতে বাংলাদেশী নিহত

|

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

ঠাকুরগাঁওয়ের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে দিন দিন বাড়ছে হত্যাকাণ্ড। সোমবার সন্ধ্যায় (সাড়ে ৬টায়) রাণীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড় সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফ’র গুলিতে মোহাম্মদ সোহেল রানা বাবু (১৫) নামের এক আরো এক বাংলাদেশী গরু ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। ভারতের পশ্চিম দিনাজপুর কোকড়াদহ ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যদের গুলিতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মোহাম্মদ বাবু হরিপুর উপজেলার ইউনিয়নের মারাধার গ্রামের একরামুল ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে রাণীশংকৈল থানার ওসি আব্দুল মান্নান জানান, সোমবার সন্ধ্যার আগে বাবু সহ কয়েকজন গরু ব্যবসায়ী অবৈধ ভাবে ভারতে গরু আনতে যান। তারা ধর্মগড় সীমান্তের ৩৭৩/২এস নং পিলারের তারকাটা অতিক্রম করে ভারতের অভ্যন্তরে প্রবেশ করলে কোকড়াদহ ক্যাম্পের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। এ সময় অন্যান্যরা পালিয়ে গেলেও বাবু গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থল ভারতের অভ্যন্তরে মারা যায়। পরে বিএসএফ জোয়ানরা তার লাশ ভারতের পশ্চিম দিনাজপুর গোয়ালপুকুর থানায় হস্তান্তর করে।

ঠাকুরগাঁও ৫০ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। তিনি জানান, এ ব্যাপারে ভারতীয় বিএসএফ’র কাছে কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে চিঠি দেয়া হয়েছে এবং লাশ ফেরত আনতে পতাকা বৈঠক আহবান করা হয়েছে।

উল্ল্যেখ্য, ঠাকুরগাঁওয়ে এর আগে চলতি মাসের গত ১৮ তারিখে একই সীমান্তে বিএসএফ এর গুলিতে রাণীশংকৈল উপজেলার শাহানাবাদ গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (২০) ও ২২ জানুয়ারি জেলার হরিপুর উপজেলার মিনাপুর সীমান্তে বিএসএফ এর গুলিতে হরিপুর ডাঙ্গীপাড়া ইউনিয়নের তালডাঙ্গা গ্রামের আব্দুর তোফায়েল ওরফে তোফ মিয়ার ছেলে জেনারুল ইসলাম (২৪) নামে আরো এক বাংলাদেশী নিহত হয়। এ নিয়ে চলতি মাসে বিএসএফ’র গুলিতে তিন বাংলাদেশী নিহতের ঘটনা ঘটল।









Leave a reply