সেই ইউএনও বীনার ওএসডি তদন্তের দাবি সংসদে

|

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সাবেক নির্বাহী কর্মকর্তা অন্তঃসত্ত্বা হোসনে আরা বেগম বীনাকে ওএসডির ঘটনায় তদন্তের দাবি উঠেছে সংসদে।

সোমবার জাতীয় সংসদে অনির্ধারণী আলোচনায় এ দাবি করেন সাবেক মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি।

সংসদ অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে ফ্লোর নিয়ে মেহের আফরোজ ওএসডির প্রেক্ষাপটে হোসনে আরার ফেসবুক স্ট্যাটাসের প্রসঙ্গটি তোলেন।

এরপর এ দাবির প্রতি সমর্থন করেন নারায়ণগঞ্জ সদর আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান।

একজন নারী সন্তানসম্ভবা হলে বিভিন্ন সমস্যার মধ্য দিয়ে যেতে হয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, একজন ইউএনও অত্যন্ত বেদনাবিধূর স্ট্যাটাস দিয়েছেন। তিনি নয় বছর পর মা হতে যাচ্ছিলেন। নির্বাচনের সময় তিনি সহকারী রিটার্নিং অফিসার হিসেবে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তার দায়িত্বে কোনো গাফিলতি ছিল না। এপ্রিল মাসে তার সন্তান জন্মগ্রহণের কথা ছিল।

চুমকি বলেন, তিনি যখন ডাক্তারের কাছে গেলেন তখন জানতে পারলেন ওএসডি হয়েছেন। এই খবরটি শুনে মানসিক চাপে আকস্মিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং তিনি সন্তান প্রসব করেন। সময়ের আগে সন্তানটি প্রসব করার কারণে শিশুটি মৃত্যুপথযাত্রীর মতো অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসায় আছে। নয় বছর মা হওয়া, সেই শিশুটি, তার মানসিক কী অবস্থা তা আমরা নিশ্চয়ই উপলব্ধি করতে পারছি।

মেহের আফরোজ বলেন, একজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি যদি সেই দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করে থাকেন তাহলে সন্তানসম্ভবা অবস্থায় কেন তাকে ওএসডি করা হল? এটি আমাদের কাছে স্পষ্ট নয়।

তিনি বলেন, একজন অন্তঃসত্ত্বা মায়ের সঙ্গে কেমন আচরণ করা উচিত, সমাজ এখনো সেই বিষয়টি উপলব্ধি করতে পারে না। এই সময় এমন আচরণ উচিত নয় যাতে সন্তান বা মায়ের ক্ষতি হতে পারে। সন্তান সুস্থভাবে জন্ম না নিলে তা কেবল মা বা তার পরিবার নয়, দেশের জন্য বোঝা হয়ে যেতে পারে।

এই ঘটনার জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানান সাবেক এ প্রতিমন্ত্রী।

ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, আশা করি, জনপ্রশাসন মন্ত্রী এ ব্যাপারে বাস্তব পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।









Leave a reply