একুশে ফেব্রুয়ারিতে শহীদ মিনারে চারস্তরের নিরাপত্তা

|

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ২১ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও এর আশপাশের এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চারস্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা থাকবে।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারকেন্দ্রিক ছয় হাজার পুলিশ মোতায়েন থাকবে। এর বাইরে রাজধানীজুড়ে দায়িত্ব পালন করবেন ১০ হাজার পুলিশ সদস্য। সব মিলিয়ে রাজধানীর নিরাপত্তায় ওই দিন ১৬ হাজার পুলিশ থাকবে।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের নিরাপত্তাব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ২০ ফেব্রুয়ারি রাতে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিসভার সদস্য, কূটনীতিকসহ ভিআইপিরা শ্রদ্ধা জানানোর পর রাত সাড়ে ১২টায় সবার জন্য উন্মুক্ত করা হবে শহীদ মিনার। তবে সাধারণরা শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে পলাশী মোড়ের একটি পথে প্রবেশ করতে পারবেন।

তিনি আরও বলেন, শহীদ মিনার ও এর চারপাশের এলাকায় সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। শহীদ মিনারের পাশে একটি অস্থায়ী কন্ট্রোলরুম করে ক্যামেরার ফুটেজগুলো রিয়েল টাইম মনিটরিং করা হবে। আগের দিন পুরো এলাকা ডগ স্কোয়াড দিয়ে সুইপিং করা হবে। পোশাকের পাশাপাশি সাদা পোশাকের পুলিশের সদস্যরা নিরাপত্তা দেবেন। শহীদ মিনারে আসা প্রতিটি ব্যক্তিকে আর্চওয়ে গেটের ভেতর দিয়ে যেতে হবে। মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে তাদের দেহ তল্লাশি করা হবে।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে জননিরাপত্তার স্বার্থে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের চারপাশের এলাকায় হকার ও ভাসমান দোকান বসতে দেয়া হবে না। ২০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বর্তমানে যেসব ভাসমান দোকান রয়েছে, সেগুলো উচ্ছেদ করা হবে।









Leave a reply