গাইবান্ধায় ভুয়া অডিট অফিসারসহ ৮ প্রতারক আটক

|

গাইবান্ধা প্রতিনিধি :

গাইবান্ধার সদর উপজেলায় একটি কমিউনিটি ক্লিনিকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ভুয়া অডিট অফিসার পরিচয়ে প্রতারণা ও চাঁদা দাবির অভিযোগে সাংবাদিকসহ প্রতারক চক্রের আট সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে নকল সার্টিফিকেটসহ বেশ কিছু ভুয়া পরিচয় পত্র জব্দ করা হয়।

রবিবার (১০ মার্চ) রাত ৮টার দিকে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মো. শাহারিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এরআগে, বিকেলে সদর উপজেলার বাদিয়াখালীর চকবরুল কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে তাদের আটক করে পুলিশ।

আটকরা হলেন, সঞ্জয় চন্দ্র, সারোয়ার হোসেন, আতিকুর রহমান, রুবেল মিয়া, রায়হান সরকার, মুর্শিদা আকতার রুমি ও কাকুলী খাতুন। আটকদের বাড়ি গাইবান্ধার সদর, সাঘাটা ও পলাশবাড়ী উপজেলায়। আটকদের মধ্যে তপণ চন্দ্র নিজেকে স্থানীয় পত্রিকার সাংবাদিক দাবি করেন। তপন চন্দ্র সদর উপজেলার ব্রিজ রোড কালীবাড়ির নারু গোপাল দাসের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রবিবার দুপুরের পর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের লোগো সম্বলিত একটি সাদা মাইক্রোবাসে করে সদর উপজেলার বাদিয়াখালী ইউনিয়নের চকবরুল কমিউনিটি ক্লিনিকে যায় প্রতারক চক্রের আট সদস্য। এ সময় তারা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অডিট অফিসার পরিচয় দিয়ে ক্লিনিকের দায়িত্বরত কমিউনিটি হেলথ প্রোভাইডার (সিএইচসিপি) সজিব মিয়ার কাছে ক্লিনিক পরিচালনার বিভিন্ন কাগজ পত্র দেখতে চায়। পরে তারা সজিব মিয়ার কাছ ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। কিন্তু তাদের কথাবার্তায় সন্দেহ হলে সজিব মিয়া বিষয়টি আশপাশের লোকজনকে জানায়। পরে আশপাশের লোকজন এসে তাদের আটক করে একটি রুমে তালাবদ্ধ করে রেখে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ তাদের আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বি-সার্কেল)  মইনুল ইসলাম জানান, ভুয়া পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে আটক ৮ জনের বিরুদ্ধে সিএইচসিপি সজিব মিয়া বাদি হয়ে সদর থানায় একটি মামলা করেছেন। আটকরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে জড়িত কিনা তা নিশ্চিত করতে তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা কাগজপত্র ও পরিচয়পত্র যাচাই করা হচ্ছে। সোমবার সকালে তাদের আদালতে পাঠানো হবে।

এদিকে, সদর উপজেলার বোয়ালী কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইচসিপি মাহাবুবা আক্তার জানান, আটকরা প্রতারক চক্রের সদস্য। এর আগে গত সপ্তাহে তার কর্মরত কমিউনিটি ক্লিনিকে গিয়েও একই ধরনের কর্মকাণ্ড চালিয়ে টাকা দাবি করেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।









Leave a reply