অটিস্টিক শিশুদের জন্য নিবেদিতপ্রাণ যে প্রতিষ্ঠানটি

|

প্রতিবন্ধীরা বোঝা নয়; চাইলে তারাও পারে সমাজের উন্নয়নে ভুমিকা রাখতে। এমন আত্ম বিশ্বাস থেকেই নারায়ণগঞ্জের ফরাজিকান্দা গ্রামে গড়ে উঠেছে ‘অটিজম চাইল্ড মডেল একাডেমি’। চেষ্টা চলছে অটিস্টিক শিশুদের সমাজের মূল স্রোতে নিয়ে আসার।

যত্ন আর মমতা পেলে তারাও অন্য শিশুর মত মেধার বিকাশ ঘটাতে সক্ষম। বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চা, খেলাধুলাসহ নানা ক্ষেত্রে  তারা প্রমাণ করছে  সমাজে তারাও অবদান রাখতে সক্ষম। অটিজম আক্রান্ত শিশুর মেধাবিকাশে নারায়ণগঞ্জের প্রথম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘অটিজম চাইল্ড মডেল একাডেমি’। গত বছর বন্দর উপজেলার ফরাজিকান্দায় ব্যক্তি উদ্যোগে মাত্র ৬ জন শিশু নিয়ে যাত্রা শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। এখানে নিজস্ব কারিকুলামে নিয়মিত লেখাপড়ার পাশাপাশি ছাত্র-ছাত্রীদের হাতের কাজও শেখানো হচ্ছে ।

মডেল চাইল্ড একাডেমির উদ্দ্যোক্তা হাসিনা রহমান সিমু বলেন, একটা বাচ্চা প্রতিবন্ধী অথবা স্বাভাবিক যাই হোক না কেন তার জন্য শিক্ষার প্রয়োজন রয়েছে। তাই বাচ্চাদেরকে আমার কাছে রেখে আবাসিক এবং অনাবাসিক দুই ধরনের ব্যবস্থাই চালু করতে চাই।

অনানুষ্ঠানিক শিক্ষার মাধ্যমে অটিস্টিক শিশুদের সমাজের মূল স্রোতে নিয়ে আসার এই প্রচেষ্টায় খুশি অভিভাবকরা। একজন অভিভাবক বলেন, এখানে বাচ্চারা খেলাধুলা ও অন্যান্য বাচ্চার সাথের চলাফেরার মাধ্যমে তাদের ভেতর অনেকটা সুস্থ স্বাভাবিক পরির্বতন আসছে। সামনের দিকে আরো পরিবর্তন হবে বলে আশা করছি।

একাডেমির ব্যাপ্তি বাড়াতে সহায়তার হাত বাড়িয়েছেন সমাজের স্বচ্ছলরা। কলেবর বৃদ্ধি পাওয়ায় এখন নিজস্ব ভবনের স্বপ্ন দেখছে অটিজম চাইল্ড মডেল একাডেমি।

নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া বলেন, একাডেমির জন্য কিছু খাস জমি বের করার চেষ্টা করছি। প্রতিষ্ঠানটি যাতে এগিয়ে যেতে পারে সে জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা করা হবে।

 

 









Leave a reply