সৌদিতে ৩৭ জনের মৃত্যুদণ্ডে মুখে কুলুপ এঁটেছে যুক্তরাষ্ট্র!

|

সৌদি আরবের সাম্প্রতিক ইতিহাসের অন্যতম বড় গণমৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ঘটনা ঘটেছে গত সোমবার। এদিন দেশটিতে ৩৭ জন পুরুষকে ‘উগ্রপন্থায় জড়িত’ থাকার অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

যাদেরকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে তাদের ৩৪ জনই শিয়া মতাবলম্বী বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সৌদি নাগরিক আলী আল আহমেদ। তিনি ওয়াশিংটন ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান গাফ ইনস্টিটিউটের কর্নধার।

এর আগে ২০১৬ সালে একদিনে ৪৯ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছিল রিয়াদ। ওটা ছিল ১৯৮০ সালের পর সবচেয়ে বড় গণমৃত্যুদণ্ডের ঘটনা। গত সোমবারের ঘটনায় উগ্রপন্থার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা ব্যক্তিদের বেশিরভাগ শিয়া মতাবলম্বী হওয়ায় এই পদক্ষেপকে রাজনৈতিক হিসেবে দেখা হচ্ছে। অনেকে রিয়াদের এমন পদক্ষেপকে বিরুদ্ধ মতাবলম্বীদের ওপর দমন নীতির অংশ হিসেবে মনে করছেন।

এ বিষয়ে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ যুক্তরাষ্ট্রকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন। আজ বুধবার এক টুইটে জাভেদ বলেছেন, এতগুলো লোককে মৃত্যুদণ্ড দেয়ার পরও মুখে কুলুপ এঁটে বসে আছে যুক্তরাষ্ট্র।

মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারনেশনাল বলেছে, মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আগে আন্তর্জাতিক সব ধরনের মানদণ্ডের লঙ্ঘন ভুয়া বিচারের আয়োজন করা হয়।

চলতি বছর ১০০ জনের বেশি মানুষকে সৌদিতে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিচার প্রক্রিয়ায় আন্তর্জাতিক মানদণ্ড লঙ্ঘিত হলে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এর সমালোচনা করা হয়। যদিও ঘনিষ্ঠ মিত্র সৌদি আরবের ক্ষেত্রে প্রায় ব্যতিক্রম দেখা যায় ওয়াশিংটনের আচরণ।

যমুনা অনলাইন/কিউএস









Leave a reply