নুসরাত হত্যা: গেটে পাহারার দায়িত্বে ছিল মামুন ও রানা

|

মুহাম্মদ আরিফুর রহমান, ফেনী প্রতিনিধি:

ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যার ঘটনায় আরও দুইজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তারা হলো এমরান হোসেন মামুন ও ইফতেখার উদ্দিন রানা।

আজ সোমবার বিকালে ফেনীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট জাকির হোসাইনের আদালতে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে তাদের হাজির করা হয়।

পিবিআই’র চট্টগ্রাম বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবাল জানান, ঘটনার দিন তারা দুইজন গেট পাহারার দায়িত্বে ছিল। যাতে করে ছাদে কিলিং মিশনে কেউ প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে না পারে। এছাড়া নুসরাত হত্যাকান্ডের ঘটনায় যাবতীয় যত পরিকল্পনা হয়েছে সব বিষয়ে তারা জানতো।

এর আগে ২০ এপ্রিল রাঙামাটি ও কুমিল্লায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। সোনাগাজীর চরগণেশ এলাকার জামাল উদ্দিনের ছেলে রানা ওই হত্যাকান্ডের পর পালিয়ে রাঙামাটি চলে গিয়েছিল। কুমিল্লার পদুয়ার বাজার এলাকা থেকে এমরান হোসেন মামুনকে পুলিশ আটক করেছিলো। এমরানের বাড়ি সোনাগাজীর চরগনেশ এলাকায়। গ্রেফতারের পর বৃহস্পতিবার (২ মে) দুপুরে ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক জাকির হোসাইন এর আদালত তাদের দুই জনের ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এ ঘটনার পর হত্যাকান্ডের মূল পরিকল্পনাকারী সিরাজ উদ দৌলাসহ ২১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। । এ দু’জনের জবানবন্দিসহ ১১ জনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।









Leave a reply