৭ মার্চের ভাষণের স্বীকৃতিতে সংসদে ধন্যবাদ প্রস্তাব পাস

|

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণকে বিশ্ব ঐতিহ্যের দলিল হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় ইউনেস্কোসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছে জাতীয় সংসদ। বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এ প্রস্তাব উত্থাপন করেন। পরে সংসদে সর্বসম্মতিক্রমে তা পাস হয়। আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শোষিত-নিপীড়িত মানুষের মুক্তির সনদ ৭ মার্চের ভাষণ।

দিশাহীন জাতির মুক্তির নির্দেশিকা” কিংবা ”কালজয়ী কোন কবির ধ্রুপদী কবিতা”-এমন নানা উপমা দেয়া হয়, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ বোঝাতে। বাঙ্গালি জাতির মুক্তির ঘোষণাকে গত ৩১ অক্টোবর, বিশ্ব ঐতিহ্যের দলিল হিসেবে স্বীকৃতি দেয় আন্তর্জাতিক সংস্থা ইউনোস্কো। দীর্ঘ দিনের প্রত্যাশা পূরণ হওয়ায় ইউনেস্কোকে ধন্যবাদ জানায় জাতীয় সংসদ।

ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘৭ মার্চের ভাষণ সারা বিশ্বের শোষিত, বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ের প্রেরণা। ৭ মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু কেবল স্বাধীনতাই ঘোষণা করেননি, অর্থনৈতিক মুক্তির কথাও বলেছেন স্পষ্টভাবে। ১৯৭৫-এর পর স্বাধীনতা বিরোধী চক্র ৭ মার্চের ভাষণকে নিষিদ্ধ করেছিলো।’ ঐতিহাসিক এ ভাষণের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে অনেকটা আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন শেখ হাসিনা।

ইউনেস্কোকে ধন্যবাদ জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের আনা প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয় জাতীয় সংসদে।

যমুনা অনলাইন/এইচকেএফ

 









Leave a reply