কওমি মাদরাসার শিক্ষিকাকে গলা কেঁটে হত্যার চেষ্টা

|

পাবনা প্রতিনিধি :
পাবনার আটঘরিয়ার দেবোত্তর কওমি মহিলা মাদরাসার শিক্ষিকা মলিনা খাতুনকে গলা কেঁটে হত্যার চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা। রাতেই স্থানীয়রা তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। তার অবস্থা অবনতি ঘটলে ডাক্তার তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত রোববার রাত সাড়ে আটটার দিকে মাদরাসা প্রাঙ্গণে।

হাসপাতাল ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার দিন রাত সাড়ে আটটার দিকে শিক্ষিকা মলিনা খাতুনের স্বামী মোয়াজ্জেম হোসেন রামচন্দ্রপুর গ্রামে এক মসজিদে প্রতিদিনের ন্যায় তাঁরাবির নামাজ পড়াতে যায়। এই সুযোগে কে বা কাহারা কওমী মাদরাসা গেটে এসে দরজা খুলতে বলে। মলিনা খাতুন দরজা খুলে দিলে তাকে ধারালো চাকু দিয়ে গলা কেঁটে হত্যার চেষ্টা করে। পরে তার আত্মচিৎকারে পথচারীরা ও প্রতিবেশীরা ছুটে আসলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

চিকিৎসক জানিয়েছেন তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে মনে করছেন।

তবে পুলিশ বলছে, কি কারণে তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে আসামিকে গ্রেফতারের সাড়াশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।









Leave a reply