শিক্ষিকাকে ধর্ষণের দায়ে প্রধান শিক্ষকের যাবজ্জীবন 

|

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ায় খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী এক শিক্ষিকাকে ধর্ষণের দায়ে একই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শরিফুল ইসলামকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১ লক্ষ টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছে আদালত। আজ সকালে কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক মুন্সী মোঃ মশিয়ার রহমান নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ১৬ ধারা মোতাবেক আদালতে আসামির উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

অভিযুক্ত শিক্ষক শরিফুল ইসলাম মেহেরপুর জেলার মুজিবনগর উপজেলার ভবরপাড়া গ্রামের মৃত রহমান মোল্লার ছেলে। তিনি মুজিবনগর আম্রকানন নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং  ঐ শিক্ষিকা খন্ডকালীন শিক্ষিকা হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ধর্ষণের  শিকার ঐ শিক্ষিকা ২০১৬ সালের ১৩ মে মাধ্যমিক স্কুল শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় অংশ নিতে অভিযুক্ত শিক্ষক শরিফুল ইসলামের সাথে কুষ্টিয়া আসেন। কুষ্টিয়া শহরের বড়বাজার এলাকায় আল আমিন আবাসিক হোটেলে মামা-ভাগনি পরিচয়ে আলাদা আলাদা কক্ষ ভাড়া নেন। ঐদিন ভোরবেলা শরিফুল ইসলাম শিক্ষিকাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এসময় বিষয়টি কাউকে না জানাতে হত্যার হুমকিও দেয় শরিফুল।  কিন্তু শিক্ষিকা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে একটি ইজিবাইক ভাড়া করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক কৌশলে পালিয়ে যায়।

এই ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষিকা বাদী হয়ে প্রধানশিক্ষক শরিফুল ইসলামকে একমাত্র আসামি করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ ২০১৬ সালের ১ অক্টোবর আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত আজ এই রায় ঘোষণা করেন।









Leave a reply