চুয়াডাঙ্গায় আলাদা ঘটনায় তিন জনের মৃত্যু

|

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

চুয়াডাঙ্গায় আলাদা তিনটি ঘটনায় তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। নিজ ঘরে গলায় দড়ি দিয়ে, পানিতে ডুবে ও বিদ্যুত পৃষ্ট হয়ে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার সুকুমার বিশ্বাস জানান, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে বুধবার দুপুরে উপজেলার নতিপোতা গ্রামে নিজ ঘর থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় গৃহবধূর পপির লাশ উদ্ধার করা হয়।

তবে শ্বশুড় বাড়ির লোকজন তার মেয়েকে হত্যা পর লাশ ঝুলিয়ে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছেন পিতা। বিয়ের মাত্র আট মাসের মাথায় কোন কারণ ছাড়াই তার মেয়ে কেন আত্মহত্যা করবে সে তুলেছেন তিনি।

এসব অভিযোগ অস্বীকার করে শ্বশুড় বাড়ির লোকজন বলছে, স্বামীর সাথে ঝগড়া পর অভিমান থেকেই আত্মহত্যা করেছে পপি। এ ঘটনার পর থেকেই ‌‌’পুলিশী ঝামেলা এড়াতে’ আত্মগোপনে রয়েছেন পপির স্বামী মশিউর রহমান সহ পরিবারের লোকজন।

মৃত্যুর প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানে গৃহবধূর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ ।

এদিকে, দামুড়হুদা উপজেলার শ্যামপুর গ্রামে মাথাভাঙ্গা নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ হন মিসরি খাতুন (২০) নামে এক প্রতিবন্ধী নারী। পরে অনেক খোঁজাখুজির পর বিকেল ৩টার দিকে তার মৃতদেহ নদীতে ভেসে ওঠে। সে শ্যামপুর গ্রামের জোবইর মন্ডলের মেয়ে।

অন্যদিকে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ছয়ঘরিয়া গ্রামে বিদ্যুত পৃষ্ঠ হয়ে আাকশ নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।
নিহতের পরিবারের লোকজন জানায়, বেলা ১২টার দিকে বাড়ির সিলিং ফ্যানের লাইনের কাজ করতে গেলে বিদ্যুতায়িত হয় আকাশ। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।









Leave a reply