সেফটি ট্যাংক থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

|

গাজীপুর প্রতিনিধি:

নিখোঁজের ১২ দিন পর ইসমাইল হোসেন জিশান নামে এক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সকালে সিটি করপোরেশনের কামারজুড়ি এলাকার একটি সেফটি ট্যাংক থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত জিশান গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বোর্ডবাজারের কাথোরা এলাকার সাব্বির হোসেন শহীদের ছেলে। তিনি ইউরোপীয় ইউনিভারসিটি অব বাংলাদেশ নামের একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন।

নিহতের স্বজন ও পুলিশ জানায়, জিশান বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনার পাশাপাশি উবার চালক ছিলেন। গত ১২ মে আটক হাসিবুল ইসলাম হাসিব শেরে বাংলা নগর থেকে তার মোটর সাইকেলটি ভাড়া নিয়ে গাজীপুরে আসেন। এরপর থেকে নিখোঁজ ছিলেন জিশান। পরে জিশানের খোঁজে তার স্বজনরা শেরে বাংলা নগর থানায় সাধারণ ডায়েরি দায়ের করেন। এরপর পুলিশ ঘটনার তদন্তে নামে। তদন্তে হাসিবের সম্পৃক্ত পেলে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে তার দেয়া তথ্যমতে বৃহস্পতিবার কামারজুড়ি এলাকার একটি সেফটি ট্যাংক থেকে জিশানের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে হাসিব জানায়, ১২ তারিখ রাতেই জিশানকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ সেফটি ট্যাংকিতে ফেলে দেয়া হয়। গ্রেপ্তারকৃত হাসিবের কাছ থেকে জিশানের ব্যবহৃত মোবাইল সেট ও মোটর বাইকটি উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে কি কারণে তাকে হত্যা করেছে সে বিষয়ে এখনো স্পষ্ট হতে পারেনি পুলিশ।









Leave a reply