ফরিদপুরে ইউএনও’র নম্বর ক্লোন করে চাঁদা দাবি

|

?????????????????????

ফরিদপুর প্রতিনিধি:

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) এর সরকারি মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষকের নিকট টাকা চাওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ১০ এর দিকে ইউএনওর ক্লোন নম্বর থেকে উপজেলার আলগি ইউনিয়ন ন্যাশনাল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মাহাতাব উদ্দিনের কাছে আট হাজার টাকা চাওয়া হয়।

মো. মাহাতাব উদ্দিন বলেন, সকাল ১০টা ১০ মিনিটের দিকে ইউএনওর মুঠোফোন নম্বর থেকে তার মুঠোফোন নম্বরে ফোন করে বরা হয় আপনার বিদ্যালয়ের জন্য দুটি ল্যাপটপ বরাদ্দ পাওয়া গেছে, এর মধ্যে আপনার নিজের একটি। আমি এখন ঢাকায় আছি, আপনি দ্রুত আট হাজার টাকা পাঠিয়ে দিন।

তবে মাহতাব উদ্দিন টাকা না দিয়ে উপজেলায় যোগাযোগ করে জানতে পারেন ইউএনও বর্তমানে ভাঙ্গায় নেই। গত ১৮ মে ১০ দিনের প্রশিক্ষণে বিদেশ গিয়েছেন। আগামী ২৯ মে তাঁর (ইউএনও) ফেরার কথা।

এ ব্যাপারে ভাঙ্গা ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার হিমাদ্রি খীসা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গতকাল দুপুর ১টার দিকে ‘একটি বিশেষ অনুরোধ’-এর মাধ্যমে জানান, ‘ভাঙ্গা ইউএনও মহোদয়ের অফিসিয়াল নাম্বার ক্লোন হয়েছে। ইউএনও পরিচয় দিয়ে টাকা চাওয়া হচ্ছে। প্রতারণামূলক ফোন পেয়ে কেউ প্রতারিত হবেন না। এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকার অনুরোধ রইল।’

প্রসঙ্গত বর্তমান ভাঙ্গার ইউএনও মুকতাদিরুল আহমেদ ১০ দিনের প্রশিক্ষণে গত ১৮ মে থেকে দেশের বাইরে অবস্থান করছেন। বর্তমান ভাঙ্গার ইউএনও হিসেবে অতিরিক্ত দায়িত্বে আছেন ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার ইউএনও পূরবী গোলদার।

পূরবী গোলদার জানান, ভাঙ্গার ইউএনওর সরকারি নম্বরটি বর্তমানে তিনি ব্যবহার করছেন। তিনি বলেন, গতকাল মোট দুইটি স্কুলের প্রধান শিক্ষকের নিকট ইউএনওর ক্লোন নম্বর থেকে ফোন করে টাকা চাওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, এ খবর জানার পর দুপুর ১২টার দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সতর্ক করে আমি একটি খুদে বার্তা দিয়েছি। এছাড়া ভাঙ্গার সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিমাদ্রি খীসা গতকাল সন্ধ্যায় এ ব্যাপারে ভাঙ্গা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

প্রসঙ্গত গত বছর ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক, ফরিদপুর সদর উপজেলার ইউএনও ও ভাঙ্গার ইউএনওর মুঠোফোন নম্বর ক্লোন করে টাকা চাওয়ার ঘটনা ঘটেছিল।









Leave a reply