‘ইফতারে যাব, আমি মমতা, মমতাই থাকব’

|

প্রসঙ্গ আলাদা হলেও নির্বাচনে পরাজয়ের পর পূর্বসুরি বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের মতোই নিজের অবস্থানে অনড় থাকার বার্তা দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সিঙ্গুর-নন্দীগ্রামের জোড়া ফলায় ২০১১ সালে সুদীর্ঘ সাড়ে তিন দশকের বাম শাসনের অবসান ঘটলেও শিল্পায়নের পথ সঠিক ছিল বলে আজও মনে করেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য।

আর এবার ‘হিন্দু-মুসলমান মেরুকরণের ভোটে’ রাজ্যে গেরুয়া শিবিরের চরম উত্থানের পরও, নিজের অবস্থানে অবিচল থাকার বার্তা দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার বিকালে সাংবাদিক সম্মেলনে মমতা জানিয়েদিলেন, রমজানের শেষে ৩০মে ইফ‌তারে অংশ গ্রহণ করবেন। এরপরই শ্লেষের সুরে তিনি বলেন, “আমি তো মুসলিম তোষণ করি, তাই আমি ইফতারে যাব”।

২৩মে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশ পেতেই দেশ জুড়ে গেরুয়া ঝড়ের ছবি প্রকট হয়ে ওঠে। দেখা যায়, বিজেপির অশ্বমেধের ঘোড়া ছুটে বেড়িয়েছে পশ্চিমবঙ্গের মাটিতেও। এ রাজ্যে সবমিলিয়ে ১৮টি আসন গিয়েছে বিজেপির ঝুলিতে। ২০১৪ সালের নির্বাচনে বাংলায় মাত্র ২টি আসন জেতা বিজেপি এবার ১৮টি লোকসভা কেন্দ্রে পদ্ম পতাকা উড়িয়েছে।

অন্যদিকে, ৩৪ থেকে তৃণমূলের আসন সংখ্যা কমে হয়েছে ২২। রাজ্যে তৃণমূলের শতকরা ভোট বাড়লেও, উল্লেখযোগ্যভাবে আসন কমেছে। এই ফলাফল সামনে আসার পর একটি টুইট ছাড়া তৃণমূল কংগ্রেস বা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তরফ থেকে এ বিষয়ে কোনও বিবৃতি সামনে আসেনি।

এরপর শনিবার কালীঘাটের বাসভবনে দলীয় বৈঠক ডাকেন মমতা। সেই বৈঠকের শেষে সাংবাদিক বৈঠকে মমতা বলেন, এবারের ভোটে সাম্প্রদায়িকতার বিষ ছড়িয়ে জিতেছে বিজেপি। এরপরই তৃণমূল সুপ্রিমো সটান জানিয়েদেন, তিনি অন্যান্যবারের মতো এবারও ইফতারে যোগ দেবেন।

উল্লেখ্য, মমতা সংখ্যালঘু তোষণ করেন বলে নিয়মিত অভিযোগ করে থাকে বাম-বিজেপি-কংগ্রেস। তাছাড়া এবারের নির্বাচনে বিজেপি সেই ‘সাম্প্রদায়িকতার তাস’ই খেলে জিতেছে বলেও জানিয়ে দেন মমতা। কিন্তু এরপরও যে তিনি সংখ্যালঘুদের পাশ থেকে সরবেন না, সে কথা এদিন স্পষ্ট করে দেন মমতা। সংখ্যালঘু সম্প্রদায় তাঁর পাশে থাকায় তিনিও যে তাঁদের পাশে থাকবেন সেকথা ফের জানিয়ে দেন মমতা।

মমতা এদিন সাংবাদিক বৈঠকে তাঁর মায়ের কথা স্মরণ করেন। প্রথমবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হওয়ার পর একটি বাংলা দৈনিক তাঁর মা গায়েত্রী দেবীর সাক্ষাৎকার নেয়। সেই সাক্ষাৎকারে তাঁকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, মেয়ের জন্য তিনি কী চান? উত্তরে গায়েত্রী দেবী বলেছিলেন, “মমতা যেন মমতাই থাকে”।

মায়ের সেই ইচ্ছার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা এদিন বলেন, মমতা মমতাই থাকবে। তিনি ইফতারে অংশ নেবেন। তবে, মায়ের কথা স্মরণ করিয়ে নিজের অবস্থানে অনড় থাকা নাকি পরিবর্তীত পরিস্থিতিতে পদক্ষেপ বদল, কোনটা মমতার জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত তা বলে দেবে আগামী দিন। তবে আপাতত মমতা থাকছেন মমতাতেই।

সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।









Leave a reply