ছেলের অপরাধে থানায় ধরে নিয়ে যাওয়ায় বাবার আত্মহত্যা

|

ভারতের দিল্লিতে ছেলের অপরাধে পুলিশ বাবাকে ধরে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করায় থানার ব্যালকনি থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেছেন আসামির বাবা।

নিহত বলরাজের (৫৫) ছেলে রাহুল (২২) একটি হত্যা মামলা ও দুটি হত্যাচেষ্টা মামলার ফেরারি আসামি। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

তবে নিহতের পরিবারের দাবি, ছেলেকে না পেয়ে বলরাজকে পিটিয়ে হত্যা করেছে পুলিশ।

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা বলরাজকে পুলিশ মারধর করেছে, এমন অভিযোগ উঠলেও তা অস্বীকার করেছে বাওয়ানা থানার পুলিশ।

গত রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বাওয়ানা পুলিশ স্টেশনে বলরাজের ডাক পড়ে। ছেলে রাহুলের খোঁজখবর জানতেই বলরাজকে থানায় ডাকা হয় বলে জানান দিল্লি পুলিশের উপকমিশনার গৌরব শর্মা।

বলরাজকে তার জামাতা ও আরও কয়েকজনের উপস্থিতিতেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় বলেও দাবি করেন এ পুলিশ কর্মকর্তা।

তিনি আরও বলেন, আধঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের পর বলরাজকে ছেড়ে দেয়া হয়। এর পরই থানার ব্যালকনি থেকে লাফ দেন তিনি।

এ ঘটনায় কোনো সুইসাইড নোট পাওয়া যায়নি বলে জানান উপকমিশনার শর্মা।

পুলিশের এই শীর্ষ কর্মকর্তা জানান, নিয়মানুযায়ী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।









Leave a reply