নুসরাত রাফি হত্যা: আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি চান স্বজনরা

|

মুহাম্মদ আরিফুর রহমান, ফেনী থেকে:

আজ নুসরাত হত্যা মামলার ৫০ দিন। আগামীকাল বুধবার সে হত্যা মামলার অভিযোগ দায়ের করা হবে আদালতে। হত্যাকাণ্ডের সাথে যে ১৬ জনের সম্পৃক্ততা রয়েছে তাদের দ্রুত ফাঁসি কার্যকর করার দাবি জানিয়েছেন স্বজনরা।

নুসরাতের মা শিরিন আক্তার জানান, প্রধানমন্ত্রী ও পিবিআইকে ধন্যবাদ। প্রধানমন্ত্রী কথা রেখেছেন। নিজের মেয়ের মতো আমার মেয়ের মামলাটি দেখেছেন। এতে করে আমি খুশি হয়েছি। তবে চার্জশীটে যাদের নাম উল্লেখ রয়েছে তাদের দ্রুত ফাঁসির রায় দিয়ে কার্যকরা করা হোক। এতে করে আর কোনো মায়ের বুক খালি হবেনা। আজ প্রায় দুই মাস হয়ে যাচ্ছে; রাফি নামটি আমি ভুলতে পারছিনা।

গতকাল বিকেলে এই প্রতিবেদক নুসরাতের বাড়িতে গেলে নুসরাত মাকে বাকরুদ্ধ অবস্থায় ঘরের সামনে বসে থাকতে দেখা যায়। নুসরাতের ছোট ভাই রাশেদ রায়হান দাবি করেন, অপরাধীদের ফাঁসি কার্যকর করে আমার আপুর মতো খুনিদের কবরে শুয়ে দিতে পারলে সেদিন আমরা কিছুটা শান্তি পাবো। আমার আপুর আত্মায় শান্তি পাবে।

নুসরাতের বাবার খোঁজ নিতে গিয়ে জানা যায়, তিনি ইতেকাফ করছেন। তার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মামলার বাদি ও নুসরাতের বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান জানান, বিভিন্নভাবে জেনেছি আগামীকাল মামলার চার্জশিট দিবে। চার্জশিট দেয়ার পর আমাদের আইনজীবীর সাথে আলাপ করে এবিষয়ে কথা বলবো। তবে আমরা চার্জশিটে অভিযুক্ত আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই। যাতে কোনো অপরাধী আইনের ফাঁকফোকরে বেরিয়ে যেতে না পারে সে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে অনুরোধ জানিয়েছেন পিবিআই কর্মকর্তাদের। এ মামলার দ্রুত চার্জশিট প্রস্তুত করায় প্রধানমন্ত্রী ও পিবিআইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

গ্রেপ্তার করা হয়েছে যাদের-
প্রধান অভিযুক্ত এস.এম. সিরাজ উদদৌলা, আফসার উদ্দিন, জোবায়ের আহম্মেদ, মাকসুদ আলম কাউন্সিলর, জাবেদ হোসেন, নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন শামীম, হাফেজ আবদুল কাদের, উম্মে সুলতানা পপি, মো. শামীম, কামরুন নাহার মনি, আবদুর রহীম শরিফ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রহুল আমিন, এমরান হোসেন মামুন, ইফতেখার উদ্দিন রানা, মহিউদ্দিন শাকিল, আরিফুল ইসলাম, সাইদুল ইসলাম, কেফায়েত উল্যাহ, নুর হোসেন, আলা উদ্দিন।









Leave a reply