আলোচিত ছাত্রলীগ নেত্রী জারিন দিয়ার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার

|

সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করে বহিষ্কার হওয়া ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেত্রী জারিন দিয়ার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক জরুরি সিদ্ধান্ত মোতাবেক জানানো যাচ্ছে যে, গত ১৩ মে মধুর ক্যান্টিনে সংঘটিত অনাকাঙ্ক্ষিত ও অপ্রীতিকর ঘটনার প্রেক্ষিতে গত ২০ মে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সাময়িক বহিষ্কৃত জারিন দিয়া (সাবেক সদস্য, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ) তার কৃতকর্মের জন্য ভুল স্বীকার করে অনুতপ্ত হওয়ায় মানবিক দিক বিবেচনা করে তার ওপর আরোপিত বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হলো।

প্রসঙ্গত, ছাত্রলীগের আংশিক কমিটি প্রকাশের এক বছর পর গত ১৩ মে ঘোষণা করা হয় সংগঠনের ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি। ওইদিন সন্ধ্যায় ঢাবির মধুর ক্যান্টিনে পদবঞ্চিত ও প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া ছাত্রলীগের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা সংবাদ সম্মেলন করতে গেলে সংগঠনের বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অনুসারীরা তাদের ওপর হামলা চালান। এতে কয়েকজন নারী নেত্রীসহ ১০-১২ জন আহত হন।

কমিটিতে পদ না পেয়ে ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে উদ্দেশ্য করে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন তিনি।

এরপর ওই ঘটনা তদন্তে ১৪ মে তিন সদস্যের কমিটি করে ছাত্রলীগ। ৪৮ ঘন্টা পর প্রতিবেদন জমা দেয় তদন্ত কমিটি। সেই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ২০ মে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে হামলার ঘটনায় ছাত্রলীগ থেকে জারিন দিয়াসহ পাঁচজনকে বহিষ্কার করা হয়।

এরপর দল থেকে বহিস্কৃত হয়ে সেদিন রাতে ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন জারিন দিয়া। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি করা হয়।









Leave a reply