রোহিঙ্গাদের ভার নেয়ায় বাংলাদেশের ক্ষতিপূরণ প্রাপ্য: মার্কিন রাষ্ট্রদূত


রোহিঙ্গা সংকটের কারণে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বাংলাদেশ। এ ঘটনার জন্য যারা দায়ী তাদের উচিত বাংলাদেশকে ক্ষতিপূরণ দেয়া। এমনটাই মনে করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট। যমুনা নিউজকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এ মনোভাবের কথা জানান তিনি। বলেন, সংকট নিরসনে আলোচনার ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র সরকার সহায়তা করবে। আর পুরো বিশ্ব এই ইস্যুতে যেভাবে সাড়া দিচ্ছে, তাতে অচিরেই সমস্যা সমাধানের আশা বার্নিকাটের।

লাখ লাখ রোহিঙ্গার ভারে বিপর্যস্ত কক্সবাজারের পরিবেশ, জীবন-যাত্রা। এমন ঘোরতর সংকটে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্রও। ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট মনে করেন, দুঃখজনক এ ঘটনায় ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত বাংলাদেশ। এজন্য ক্ষতিপূরণ পাওয়া উচিত বাংলাদেশের।

বার্নিকাট বলেন, অল্প সময়ে এতোগুলো মানুষ প্রবেশ করেছে, যা ছিল অপ্রত্যাশিত, বাংলাদেশের সরকার ও মানুষের ধারণার বাইরে। তবুও, সব শঙ্কা উপেক্ষা করে রোহিঙ্গাদের স্বাগত জানিয়ে বাংলাদেশের মানুষ। তৈরি করেছে মানবতার অনন্য দৃষ্টান্ত।


৩৬ বছরের কূটনৈতিক অভিজ্ঞতা থেকে মার্শা বলেন, চীন-ভারত বা রাশিয়া, সবার স্বার্থই দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে জড়িত। তাই, সংকটের কারণে নেতিবাচক অবস্থা তৈরি হলে, তা সবার জন্যই ক্ষতির কারণ হবে।

বাংলাদেশের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করে মার্শা বার্নিকাট বলেন, মিয়ানমারের নাগরিক হিসেবে রোহিঙ্গাদের অবশ্যই মিয়ানমারে ফিরে যাওয়া দরকার। এ লক্ষ্যে দুই দেশের সংলাপ আয়োজনে যেকোনো ধরনের উদ্যোগে পাশে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র।

সংকটের স্থায়ী সমাধানের জন্য কফি আনান কমিশনের সুপারিশ পুরোপুরি বাস্তবায়ন চায় যুক্তরাষ্ট্র। এ ব্যাপারে সু চি সরকার উদ্যোগ নেবে এমনটাই প্রত্যাশা যুক্তরাষ্ট্র রাষ্ট্রদূতের। পাশাপাশি জানালেন, ‘ রোহিঙ্গা সংকটে সারা বিশ্ব যেভাবে সাড়া দিচ্ছে, তাতে সংকট কেটে যাবে বলেই আমার বিশ্বাস।’

(যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাটের একান্ত সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন আহমেদ রেজা। ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন )
যমুনা অনলাইন: এআর/টিএফ









Leave a reply