ফরিদপুরে এক নারী’র গর্ভের সন্তানের দাবী দুই স্বামীর

|

?????????????????????

ফরিদপুর প্রতিনিধি:

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলায় এক স্ত্রীর গর্ভের সন্তানের দাবী করছেন দুই স্বামী। এই নিয়ে কয়েক দফায় গ্রাম্য সালিশ হয়েও কোন ফায়সালা করতে পারেনি সমাজপতিরা।

ঘটনার বিবরনে জানা গেছে, ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার পুরাপাড়া ইউনিয়নের এক নারীর সাথে ১০ বছর আগে পার্শ্ববর্তী গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী উপজেলার জুনাসুর গ্রামের বাদশা লস্করের ছেলে ছাবু লস্করের সাথে বিয়ে হয়।

দীর্ঘদিন সংসার করার পরে পারিবারিক কলহের জের ধরে ২০১৮ সালের ৩০ অগাষ্ট ছাবুকে তালাক দেয় ওই নারী। এরপর থেকে সে বাবার বাড়িতেই থাকতে শুরু করে।

এসময় একই উপজেলার গোয়ালদী গ্রামের লাল মোল্যার ছেলে হেলাল মোল্যার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে ওই নারীর। গত ২৭ ডিসেম্বর দু’জন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। কিন্তু হেলালের সাথে বনিবনা না হওয়ায় ও পূর্বের স্বামী ছাবুর সাথে ফের সখ্যতা গড়ে উঠায় গত ১ মার্চ হেলালকেও তালাক দেয় এই নারী। ফিরে যায় প্রথম স্বামী ছাবুর কাছে। এরই মাঝে সন্তান সম্ভবা হয়ে পড়েন ওই নারী।

নিজেকে সেই সন্তানের বাবা হিসেবে দাবী করছেন এই নারী দুই স্বামীই। ছাবুর দাবী এটি তার সন্তান, হেলালেরও দাবী গর্ভের সন্তানের পিতা সে। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে কয়েকবার শালিস দরবার হলেও কোন সুরাহা হয়নি বিষয়টির।

গত ২১ এপ্রিল হেলাল ওই নারীর বিরুদ্ধে ফরিদপুরের আদালতে মামলা দায়ের করে। মামলায় উল্লেখ করা হয়, ওই নারী ও তার বাবা-মা বাড়িতে থাকা স্বর্নালঙ্কার, আসবাবপত্র ও নগদ টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। হেলালের দাবি, তিনি মামলা করাতে ওই নারীর বাবা ও আগের স্বামী হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে।

এই ব্যাপারে অপর স্বামী ছাবু জানান, এই ঘটনায় হয়রানী ও নির্যাতন করার অভিযোগে তার স্ত্রী হেলালের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের মামলা দায়ের করেছে। এসময় তিনিও গর্ভের ওই সন্তানের পিতা দাবী করেন। এদিকে ওই নারীর সাথে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি কোন সাংবাদিকের সাথে কথা বলবেন না বলে জানিয়েছেন।

পুরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সোবহান মিয়া বলেন, বিষয়টি নিয়ে এলাকায় আপোষ মিমাংসার চেষ্টা করছি। আশা করছি সব পক্ষকে নিয়ে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিরা আলোচনা করে একটি সমাধানে আসবেন।









Leave a reply