রাজাকারের ফাঁসি: গাইবান্ধায় আনন্দ মিছিল, মিষ্টি বিতরণ

|

মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় গাইবান্ধার সাবেক সংসদ সদস্য ও  জামায়াত নেতা আব্দুল আজিজের ওরফে ঘোড়ামারা আজিজের ফাঁসির রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন জেলার বাসিন্দারা। রায়ের খবরে দুপুরে সুন্দরগঞ্জে বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল চত্বর থেকে আনন্দ মিছিল বের করেন মুক্তিযোদ্ধারা। এতে অংশ নেন সামাজিক, রাজনৈতিক সংগঠনসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ।

মিছিলটি বিভিন্ন সড়ক ঘুরে আবার ওই চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। পরে জনসাধারণের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা হয়।

এসময় মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ১০ ডিসেম্বর সুন্দরগঞ্জ হানাদার মুক্ত দিবস। এর আগেই আব্দুল আজিজের রায় কার্যকরের মধ্য দিয়ে উপজেলাবাসীকে কলঙ্কমুক্ত করতে হবে।

আজ বুধবার সকালে আব্দুল আজিজসহ ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড দেন বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে ৩ সদস্যের ট্রাইব্যুনাল।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন মো. রুহুল আমিন মঞ্জু, মো. আব্দুল লতিফ, আবু মুসলিম মো. আলী, মো. নাজুমল হুদা ও মো. আব্দুর রহিম মিয়া। মুক্তিযুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা আটক, অপরহণ, লুণ্ঠন ও নির্যাতনের তিনটি ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। এর মধ্যে প্রথম অভিযোগে যাবজ্জীবন পায় আসামিরা। আর ২ ও ৩ নং অভিযোগে ৬ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।

গতকাল মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বেঞ্চ রায়ের জন্য এ দিন ধার্য করেন। গত ২৩ অক্টোবর উভয়পক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান রাখা হয়। মামলায় ছয় আসামির মধ্যে মো. আব্দুল লতিফ কারাগারে আছেন। বাকি পাঁচ আসামি পলাতক।









Leave a reply