ঝিনাইদহে ফসলি জমি নষ্ট করে প্রভাবশালীদের রাস্তা!

|

আহমেদ নাসিম আনসারী, ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ

প্রভাবশালী কয়েকটি পরিবারের যাতায়াতের সুবিধার্তে রাতের আধারে ১৫ জন কৃষকের ২ বিঘা জমি দখল করে রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার ছোট শিমলা গ্রামে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে প্রায় ৫০০/৬০০ লোক নিয়ে সিমলা-রোকনপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাসির চৌধুরির নেতৃত্বে ভেকু দিয়ে রাস্তা তৈরী করা হয়। এতে কাটা হয়েছে ২০টি মেহগনি গাছ, ফসলি জমি সহ নষ্ট করা হয়েছে আখক্ষেত ও মরিচ ক্ষেত।

সরেজমিন ও ভুক্তভোগী কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এখানে সরকারিভাবে রাস্তা করার কোন বিধান নেই। কিন্তু কাউকে না জানিয়ে পুকরিয়া গ্রামের প্রভাবশালী কয়েকটা পরিবারের যাতায়াতের সুবিধার্তে রাস্তা তৈরি করা হয়েছে। প্রায় ৮শ ফুট দৈর্ঘের রাস্তাটি তৈরী করতে অনাবাদি জমির মাটি কেটে বড় বড় গর্তও করা হয়েছে।

রাস্তার বিষয়ে কিছুই জানেন না ভুক্তভোগী কৃষক আব্দুল মান্নান। তিনি বলেন, এমনিতেই ধানের দাম নেই। তারমধ্যে আমাদের নিজস্ব জমির উপর দিয়ে ফসল নষ্ট করে রাস্তা তৈরি করা হয়েছে। এতে আমাদের মেহগনি গাছ, মরিচের ক্ষেত ও আখক্ষেত নষ্ট হয়েছে।
তিনি বলেন, চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে এই রাস্তা হয়েছে। অথচ চেয়ারম্যান বা মেম্বর কেউ আমাদের এ ব্যাপারে জানায়নি।

ওই গ্রামের সালেহা খাতুন ঋণের টাকা দিয়ে পরের জমি লিজ নিয়ে আখ চাষ করেছেন বলে জানান। বলেন, ‘আমার স্বামী কাজ করতে পারে না। ছোট ছেলেকে দিয়ে ভ্যান চালিয়ে খায়। এই জমিতে চাষ করে প্রতি সপ্তাহে কিস্তির টাকা পরিশোধ করি।’ এখন জমির উপর দিয়ে রাস্তা তৈরী করায় দুই মেয়ে আর এক ছেলেকে নিয়ে কি করবেন তা ভেবে পাচ্ছেন না এই নিঃস্ব নারী।

এই রাস্তা ইউনিয়ন পরিষদের না; তাই এর কোন দায় নিবেন না- জানিয়ে ৫নং শিমলা- রোকনপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাসির চৌধুরী বলেন, ঘটনার সময় আমি উপস্থিত ছিলাম না। সকালে দেখতে গিয়েছিলাম। তবে পুকুরিয়া উত্তরপাড়ার লোকের যাতায়াতের সুবিধার্থে রাস্তাটি করেছে বলে মনে হচ্ছে।

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুবর্ণা রানী সাহা বলেন, অভিযোগ পেলে তদন্ত করে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।









Leave a reply