‘৮৮ সালের পর এমন বন্যা দেখিনি’

|

বৃষ্টি আর উজানের ঢল অব্যাহত থাকায় আজও বিপৎসীমার অনেক ওপর দিয়ে বইছে দেশের প্রধান নদ-নদীগুলোর পানি। বন্যায় বিভিন্ন জায়গায় বাঁধ ভেঙ্গে তলিয়েছে নতুন নতুন গ্রাম। কিছু জায়গায় ত্রাণ তৎপরতা চললেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। এ পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যায় মৃত্যু হয়েছে অন্তত ৩২ জনের।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বন্যার পানিতে ডুবে কুড়িগ্রামে ১২ জন, লালমনিরহাটে ৬ জন, দিনাজপুরে ৫ জন, নীলফামারীতে ৫ জন, নেত্রকোণায় ২ জন, জামালপুরে ১ জন ও সুনামগঞ্জে ১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

দিনাজপুরের বিস্তীর্ণ এলাকা ভাসছে বানের জলে। চারদিকে থৈ থৈ পানি। ১৯৮৮ সালের পর এমন বন্যা দেখেনি সেখানকার মানুষ।  শহরের বেশিরভাগ এলাকাই জলমগ্ন। বিরল, কাহারোল, বীরগঞ্জ, চিরিরবন্দরসহ বিভিন্ন এলাকা পানিবন্দি। রেল লাইনে পানি উঠে পড়ায় এখন বন্ধ দিনাজপুর-ঢাকা রুটে ট্রেন চলাচল। ব্যাহত সড়ক যোগাযোগও।

জামালপুরে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে বন্যা। অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে যমুনার পানি বইছে বিপৎসীমার অনেক ওপর দিয়ে। জামালপুরের মাদারগঞ্জে চাঁদপুর-নাংলা বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ১৫০ মিটার অংশ ভেঙে নতুন করে প্লাবিত ১৫ টি গ্রাম। সিরাজগঞ্জ সদর, কাজীপুর, বেলকুচি, শাহজাদপুরের বিস্তীর্ণ এলাকাও ডুবে আছে যমুনার পানিতে।

কুড়িগ্রামের ৯ উপজেলার ৬০টি ইউনিয়নের ৪ লাখের বেশি মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন বানের পানিতে। বেশ কয়েকদিন হয়ে গেলেও এখনও নেই ত্রাণ তৎপরতা। খেয়ে, না খেয়ে দিন পার করছেন দুর্গতরা।

তিস্তা ও ধরলার পানি উপচে ডুবেছে লালমনিরহাটের প্রায় সাড়ে ৪ লাখ মানুষের বাড়িঘর। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ত্রাণ তৎপরতা চললেও তা প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই অপ্রতুল।

নওগাঁয় ছোট যমুনা নদীর পানি বেড়ে প্লাবিত হয়েছে মান্দার আরও কয়েকটি গ্রাম। আর পূণর্ভবা নদীর বাঁধ ভেঙে সাপাহারের বেশ কয়েকটি গ্রামে পানি ঢুকতে শুরু করেছে।

জয়পুরহাট, বগুড়া, গাইবান্ধা, মানিকগঞ্জ, নেত্রকোণা, শেরপুরসহ আরও কয়েকটি জেলাতেও প্রতিদিন ডুবছে নতুন নতুন এলাকা। এ পর্যন্ত বন্যা আক্রান্ত ২০ জেলার ১৮টি নদ-নদীর পানি বইছে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে। বন্যা আক্রান্ত হওয়ায় অথবা দুর্গতদের আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করায় বন্ধ এক হাজারেও বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply